Selena Gomez Talks About Selenators & Refers to Justin Bieber?

Selena Gomez /Credit: by WENN.com

Selena Gomez is enjoying another personal high as she’s been unveiled as the new cover girl for the latest issue of American glossy fashion bible Vogue.

The singer graces the latest Vogue in her first cover for the American version of the magazine, opening up about the struggles she faced when it came to the transition of her music, her fans and how that affected a great deal of her mental health.

Selena Gomez/Credit: WENN.com

The stunning singer and actress discusses her relationship with her fans in great detail, and at one point during the interview with Vogue she reveals that not everyone in her inner circle has always been thrilled by that.

https://www.instagram.com/p/BRtE_xoAAoU/embed/captioned/?cr=1&v=7Rob Haskell, the interviewer, shared that Selena showed “infinite patience” during fan interactions, even complimenting the girls on their dresses and inviting them to sit with her for their photos. “I have a hard time saying no to kids,” Selena added, brushing right over the “somebody” she previously mentioned.

https://www.instagram.com/p/BRtGzF7APVs/embed/captioned/?cr=1&v=7 

Philosopher of the Month: Socrates

This March, the OUP Philosophy team honors Socrates (470-399 BC) as their Philosopher of the Month. As elusive as he is a groundbreaking figure in the history of philosophy, this Athenian thinker is perhaps best known as the mentor of Plato and the developer of the Socratic method. Although Socrates wrote nothing himself and thus remains to some degree mysterious, sources including Plato, Xenophon, and a comedy by Aristophanes in which Socrates is a central character, inform our modern understanding of his life and work.

Socrates was born in Athens, where he spent most of his life. His parents were Sophroniscus, a stonemason, and Phaenarete, a midwife. With his wife, Xanthippe, Socrates had three sons. While little is known of the first half of his life, Socrates grew to become a recognizable public figure, appearing in several popular plays and poems as an eccentric character with a loquacious persona who is often seen walking barefoot. Socrates was known to have served with distinction as a heavy infantryman in the Peloponnesian War, and Plato reports that he was present at the siege of Potidaea on the Aegean coast. Noted for his endurance, Socrates reportedly stood for 24 hours in motionless contemplation. In 400 or 399 BC, Socrates was arrested in Athens and charged with corrupting the youth, not recognizing the gods of the city, and introducing new divinities. With no record of the trial, it is impossible to infer on what grounds the accusations were made, and to what conduct on the part of Socrates they refer. After a trial produced a guilty verdict, Socrates was sentenced to death by suicide.

Because Socrates left no written record of his philosophy behind, it is challenging to ascertain which doctrines, if any, he actually held—a question which has been the source of scholarly deliberation for centuries. What is known of his actual beliefs comes to us through representations (the historical accuracy of which is a matter of debate) of the character of Socrates in the works of Plato and Xenophon. Both represent Socrates as having an interest in inductive reasoning and general definitions, and both attribute to him the idea that virtue is knowledge or wisdom. According to Plato, Socrates denies possession of either, but does in some dialogues offer moral insight.

Scholar Peter Adamson, in his podcast series, History of Philosophy Without Any Gaps, devotes an entire episode on separating Socratic fact from fiction with his colleague, Rapahel Woolf.

Audio Player

Absent the influence of Socrates, it is possible that Plato would have become a statesman rather than a philosopher—inconceivably altering the landscape of western philosophy. Successive generations of thinkers have shaped their own unique portrayals of him, from the asceticism of the Cynics, to the Enlightenment’s image of Socrates the rationalistic martyr. And so, in the spirit of the Socratic method, we invite you to answer: who was Socrates? Let us know in the comments below, or on Twitter using the hashtag #philsopherotm.

Featured image: David – The Death of Socrates. Public domain via Wikimedia Commons

Black Magician’s

ভারতীয় জনগোষ্ঠীর উপর বেশ বড় রকমের প্রভাব রয়েছে এই আঘোরী সম্প্রদায়ের সাধুদের, বলা যায় ভারতকে চিহ্নিত করতে হলে যেসব চিহ্ন ব্যবহার করা হয় তার একটা এই সাধুরা। বেনারাসসহ ভারতের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা এ সাধুদের লোকজন যেমন শ্রদ্ধা-ভক্তি করে, ঠিক তেমনভাবে তাদেরকে ভয় পাওয়া লোকসংখ্যাও কম নয়। আঘোরীদের সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে প্রথমেই জানতে হবে কীভাবে একজন আঘোরী সাধু হওয়া যায়। অন্যান্য সাধুদের থেকে আঘোরী সাধুরা অনেক দিক থেকেই আলাদা। সেগুলোই তুলে ধরা হল –

আঘোরীদের বিশ্বাস

আঘোরীরা মূলত দেবতা ‘শিব’-এর পূজারী। তারা বিশ্বাস করে শিবই সবকিছুর সৃষ্টিকর্তা, ধ্বংসকারী এবং সবকিছুর পরিচালনাকারী। শিবের মহিলা রূপ মৃত্যুর দেবী ‘কাল ভৈরব বা মহাকালী’-এর উদ্দেশ্যই তারা প্রার্থনা করে এবং এ কারণেই তারা মৃত্যুভয়কে পিছনে রেখে আসে। আঘোরীদের মতে, “শিবই সবকিছু। হিন্দুধর্মের সব দেবতাই শিবের কোনো না কোনো রূপ। কিন্তু শিব তার সৃষ্টির কাছে যা দাবী করে তা প্রায় সব হিন্দু ধর্মাবলম্বীর কাছে অগ্রহণযোগ্য। তাই আঘোরীরা শিবকে সন্তুষ্ট করার দায়িত্ব নিয়েছে।”


আঘোরীদের বাসস্থান
কালো চুলের বিশাল জটাধারী আঘোরী সাধুদেরকে সহজেই চোখে পড়ে। ধ্যান করার জন্য সাধারণত তারা শ্মশানের মতো নির্জন জায়গাকেই বেছে নেয়। এছাড়াও হিমালয়ের ঠান্ডা গুহা, গুজরাটের নিষ্প্রাণ মরুভূমি এমনকি বাংলার ঘন জঙ্গলেও তাদের দেখা মেলে। তবে বেনারাস শিবের প্রিয় জায়গা হওয়ায় গঙ্গার তীরেই আঘোরী সাধুদের সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।

আঘোরীদের পোষাক
আঘোরীদের জন্য চুল বা গোফ-দাড়ি কাটা নিষিদ্ধ। সাধারণত কালো পোষাক পরতে দেখা গেলেও অনেক সময় তাদেরকে দেখা যায় অর্ধনগ্ন অবস্থায়। শ্মশানে ধ্যান করার সময় তারা পোড়ানো মৃতদেহের ছাই সারা শরীরে মেখে তার উপরে বসেই ধ্যান করা শুরু করেন, এ সময় তাদের পরনে থাকে শুধুমাত্র একটি কৌপিন। এছাড়া রুদ্রাক্ষের মালা আর মানুষের খুলি তো গলায় রয়েছেই। এছাড়াও মাঝেমধ্যে তাদেরকে দেখা যায় সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায়, পার্থিব সবকিছু ঝেড়ে ফেলার উদ্দেশ্যে তারা এটি করে থাকেন!

আঘোরীদের খাবার
অন্যান্য সাধুদের চেয়ে আঘোরীদের একটি বড় পার্থক্য হলো খাবার। অন্যান্য সাধুরা যেখানে নিরামিষাশী, সেখানে আঘোরীরা খেতে পারে যেকোন কিছুই। আবর্জনা থেকে শুরু করে মানুষের মাংস এমনকি মানুষের মলমূত্র পর্যন্তও তারা খায়! কারণ? কারণ তারা বিশ্বাস করে শিব সবচেয়ে খারাপের মধ্যেও বিদ্যমান।

আঘোরীদের মূলমন্ত্রই হচ্ছে নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতাকে খুঁজে বের করা। তাছাড়া তারা বিশ্বাস করে মলমূত্র খাওয়া তাদের ভিতরের আত্মঅহমিকাকে ধ্বংস করতে সাহায্য করে। বেঁচে থাকার জন্য তারা যতটুকু দরকার ততটুকুই খায়, তাদের কাছে খাবারের স্বাদ বা চেহারা কোনো বিষয় নয়। তবে বেনারাসের মতো জনবহুল শহরেও কেউ তাদেরকে নরমাংস খেতে বাঁধা দেয় না, কারণ তাদের খাওয়ার জন্য শ্মশানের পোড়ানো মৃতদেহ রয়েছেই।

আঘোরীদের ধ্যান
ধ্যান করার জন্য আঘোরীরা বেছে নেয় শ্মশানকে। একেবারে মধ্যরাত থেকে তারা পোড়ানো মৃতদেহের উপর বসে ধ্যান শুরু করে। তারা বিশ্বাস করে এই সময়টিতে কোনো মানুষ বা কোনো আত্মা ঘোরাফেরা করে তাদের ধ্যানের মনোযোগ নষ্ট করতে পারবে না। এছাড়া তারা ধ্যান করার আগে খানিকটা গাঁজাও টেনে নেয় যাতে ধ্যানের মনোযোগ আরও সুদৃঢ় করতে পারে। এছাড়া তারা দাবী করে, গাঁজার ঘোর তাদেরকে আত্মা দেখতে সাহায্য করে! যদিও গাঁজা টানার পরেও তাদের চোখ থাকে শান্ত-নির্লিপ্ত।


আঘোরীদের ক্ষমতা
আঘোরীরা দাবী করে তাদের কাছে পৃথিবীর সব রোগেরই ঔষধ রয়েছে, যেগুলো ক্যান্সার এমনকি এইডসকেও সারিয়ে তুলতে পারে! তারা এগুলো পোড়ানো মৃতদেহগুলো থেকে সংগ্রহ করে এবং একে বলা হয় ‘মানুষের তেল’! তারা বিশ্বাস করে এগুলো দিয়ে সব রোগই সারিয়ে তোলা সম্ভব কিন্তু মানুষ এগুলো ব্যবহার করে না সামাজিক বাধার কারণে। যদিও বিজ্ঞান দিয়ে তাদের এই দাবীকে কখনো পরীক্ষা করে দেখা হয়নি।

আঘোরীদেরকে বলা হয় পৃথিবীর সেরা কালো জাদুকর। যদিও তারা দাবী করে, তারা এই ক্ষমতা কখনো মানুষের ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে ব্যবহার করে না, বরং মানুষের উপকার করে। কোনো অসুস্থ মানুষের রোগকে তারা কালো জাদুর সাহায্যে মৃতদেহে ঢুকিয়ে দেয় এবং মৃতদেহ পুড়িয়ে রোগটিকে ধ্বংস করে ফেলে!


আঘোরীদের মূলমন্ত্র – “নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতা খোঁজা”
আঘোরীরা বিশ্বাস করে ডান বা ভাল পথের চেয়ে বাম বা খারাপ পথ দ্বারা দেবতার সান্নিধ্য পাওয়া যায় খুবই দ্রুত এবং এটি কার্যকরও হয় আরও গভীরভাবে। যদিও এভাবে সান্নিধ্য পাওয়ার মতো সাহস শুধু আঘোরীদেরই আছে। অমাবস্যার মধ্যরাতে তারা কালীকে খুশি করার জন্য মৃতদেহের সাথে মিলিত হয়! মেরোনাথ নামক এক আঘোরী সাধুর ভাষায়, “আমাদের এই কাজকর্ম বাইরের দুনিয়ায় অতি অস্বাভাবিক মনে হতে পারে, কিন্তু আমরা নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতা পাওয়ার চেষ্টা করি। যদি কেউ মৃতদেহের সাথে মিলিত হবার সময়ও দেবতার উপর মনোযোগ রাখতে পারে তবে বুঝতে হবে সে সঠিক পথে রয়েছে।” এছাড়াও তারা বিশ্বাস করে, এর ফলে তাদের মধ্যে অতিপ্রাকৃত ক্ষমতার সৃষ্টি হয়! মিলিত হবার সময় অন্যান্য সাধুরা বৃত্তাকারে ঘুরতে ঘুরতে মন্ত্র জপতে থাকে এবং শ্মশানে বাজতে থাকে ঢাকের বাজনা!


লেখার শুরুটা হয়েছিল গল্প দিয়ে, শেষটা করা যাক একটা বাস্তব ঘটনা দিয়ে।

আঘোরী সাধুদের মধ্যে বোধহয় সবচেয়ে বিখ্যাত ছিলেন তৈলঙ্গ স্বামী। যা-ই হোক, বেনারাস শহরের কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের এক পুরোহিত একদিন দেখতে পান তৈলঙ্গ স্বামী তার গোপনাঙ্গ দিয়ে শিবের পূজা করছে! দেখার সাথে সাথে তিনি তৈলঙ্গ স্বামীকে চড় মেরে তাকে মন্দির থেকে তাড়িয়ে দেন এবং পরের ঘটনা সহজেই অনুমেয়। পরদিন সকালেই পুরোহিত আকস্মিকভাবেই মারা যান কোনোরকম আঘাত বা বিষ প্রয়োগ ছাড়াই!

নরখাদক আঘোরীদের ইতিকথা

উত্তর প্রদেশের বেনারাস শহরে ছুটি কাটাতে এসেছেন গগনবাবু। ছুটি কাটানোর জন্য বেনারাস শহর যে কীরকম তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন তিনি, তীর্থযাত্রীদের ভীড়ে জান যায় যায় অবস্থা। তবে গঙ্গার খোলা হাওয়া শান্তির যে পরশ বুলিয়ে যাচ্ছে তাও কম না, অন্তত কলকাতার মত শহরে এ জিনিস আশা করাই পাপ।

বেলা বাড়তেই ভীড় হওয়ার কারণে আজ একটু সকাল করেই বেরিয়েছেন হাওয়া খেতে। অন্যমনস্ক হয়ে হাঁটতে হাঁটতে হঠাৎ কী একটা যেন পায়ের ধাক্কায় ছিটকে দূরে গিয়ে পড়ল। জিনিসটা চোখে পড়তেই চক্ষু চড়কগাছ হয়ে গেল তার, এ যে নর মস্তকের খুলি! পাশে ফিরতেই একটা ধাক্কা খেলেন গগনবাবু। গেরুয়া বসনে গাঁজার কলকে হাতে রুদ্রাক্ষের মালা পরিহিত সাধুকে তো প্রতিদিনই দেখতে পান। কিন্তু এ সাধুর চোখ তো ভাটার আগুনের মতোই লাল, আর সেটা তার দিকেই চেয়ে রয়েছে। কোনোমতে মাথার খুলিটি নিয়ে সাধুর সামনে রেখেই ভোঁ দৌড় হোটেলের দিকে। সাধুকে দেখার পরেই মাথা ঝিমঝিম করছে কলকাতার স্বনামধন্য ডাক্তারের। হোটেলের রুমে ঢুকে শুয়ে পড়তেই ঘুমে ঢুলুঢুলু হয়ে এল চোখজোড়া।

ঘোরের মধ্যেই নিজেকে আবিষ্কার করলেন বিশাল এক খোলা মাঠে। অমাবস্যার ঘুটঘুটে অন্ধকারে কিছুই দেখতে পেলেন না প্রথমে। হঠাৎ করেই তার পিলে চমকে দিয়ে পাশেই আগুন জ্বলে উঠল। আগুনের কাছে যেতেই দ্বিতীয়বার চমকে উঠলেন তিনি, চন্দন কাঠের চিতায় যে তার মতোই দেখতে কাউকে শোয়ানো হয়েছে। বেশি কিছু চিন্তা না করে পালানোর কথা ভাবতেই সামনে দেখলেন তার সব পথ আটকানো। একদল নগ্ন আঘোরী সাধু তাকে আর সেই চিতাকে গোল করে ঘিরে ঢাকের তালে তালে উদোম তালে নাচছেন! ধীরে ধীরে নাচের বৃত্ত ছোট হতে শুরু করেছে, এমন সময় এক সাধু নাচের বৃত্ত থেকে বের হয়ে এসে পোড়ানো মৃতদেহ থেকে এক টুকরো মাংস ছিড়ে নিয়ে মুখে পুরে দিলেন!

চিৎকার করে লাফ দিয়ে উঠলেন গগনবাবু। “উঃ, কী দুঃস্বপ্নরে বাবা!” হোটেলের জানালার দিকে তাকিয়ে দেখলেন সূর্যমামা ডুবে গেছে। আকাশের রক্তিমাভা থাকতে থাকতেই বেরিয়ে পড়লেন সেই সাধুর সন্ধানে, পেয়েও গেলেন। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার পর সাধুর মুখ থেকে একটি বাক্যই তার কর্ণকুহরে প্রবেশ করল, “এবার কমের উপর দিয়ে গেল, পরেরবার সাবধান থাকিস!

লেখাটা যখন আঘোরী সাধুদের নিয়েই, তখন এরকম কিছু গল্প দিয়েই শুরু করা ভাল। এখন মনে প্রশ্ন হতে পারে আঘোরী কারা? উপরের গল্পের সাথে তাদের কি আদৌ কোনো মিল রয়েছে? লেখার শেষ পর্যন্ত যেতে যেতে আশা করি উত্তরটা পেয়ে যাবেন।

ভারতীয় জনগোষ্ঠীর উপর বেশ বড় রকমের প্রভাব রয়েছে এই আঘোরী সম্প্রদায়ের সাধুদের, বলা যায় ভারতকে চিহ্নিত করতে হলে যেসব চিহ্ন ব্যবহার করা হয় তার একটা এই সাধুরা। বেনারাসসহ ভারতের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা এ সাধুদের লোকজন যেমন শ্রদ্ধা-ভক্তি করে, ঠিক তেমনভাবে তাদেরকে ভয় পাওয়া লোকসংখ্যাও কম নয়। আঘোরীদের সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে প্রথমেই জানতে হবে কীভাবে একজন আঘোরী সাধু হওয়া যায়। অন্যান্য সাধুদের থেকে আঘোরী সাধুরা অনেক দিক থেকেই আলাদা। সেগুলোই তুলে ধরা হল –

আঘোরীদের বিশ্বাস

আঘোরীরা মূলত দেবতা ‘শিব’-এর পূজারী। তারা বিশ্বাস করে শিবই সবকিছুর সৃষ্টিকর্তা, ধ্বংসকারী এবং সবকিছুর পরিচালনাকারী। শিবের মহিলা রূপ মৃত্যুর দেবী ‘কাল ভৈরব বা মহাকালী’-এর উদ্দেশ্যই তারা প্রার্থনা করে এবং এ কারণেই তারা মৃত্যুভয়কে পিছনে রেখে আসে। আঘোরীদের মতে, “শিবই সবকিছু। হিন্দুধর্মের সব দেবতাই শিবের কোনো না কোনো রূপ। কিন্তু শিব তার সৃষ্টির কাছে যা দাবী করে তা প্রায় সব হিন্দু ধর্মাবলম্বীর কাছে অগ্রহণযোগ্য। তাই আঘোরীরা শিবকে সন্তুষ্ট করার দায়িত্ব নিয়েছে।”

আঘোরীদের বাসস্থান

কালো চুলের বিশাল জটাধারী আঘোরী সাধুদেরকে সহজেই চোখে পড়ে। ধ্যান করার জন্য সাধারণত তারা শ্মশানের মতো নির্জন জায়গাকেই বেছে নেয়। এছাড়াও হিমালয়ের ঠান্ডা গুহা, গুজরাটের নিষ্প্রাণ মরুভূমি এমনকি বাংলার ঘন জঙ্গলেও তাদের দেখা মেলে। তবে বেনারাস শিবের প্রিয় জায়গা হওয়ায় গঙ্গার তীরেই আঘোরী সাধুদের সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।

আঘোরীদের পোষাক

আঘোরীদের জন্য চুল বা গোফ-দাড়ি কাটা নিষিদ্ধ। সাধারণত কালো পোষাক পরতে দেখা গেলেও অনেক সময় তাদেরকে দেখা যায় অর্ধনগ্ন অবস্থায়। শ্মশানে ধ্যান করার সময় তারা পোড়ানো মৃতদেহের ছাই সারা শরীরে মেখে তার উপরে বসেই ধ্যান করা শুরু করেন, এ সময় তাদের পরনে থাকে শুধুমাত্র একটি কৌপিন। এছাড়া রুদ্রাক্ষের মালা আর মানুষের খুলি তো গলায় রয়েছেই। এছাড়াও মাঝেমধ্যে তাদেরকে দেখা যায় সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায়, পার্থিব সবকিছু ঝেড়ে ফেলার উদ্দেশ্যে তারা এটি করে থাকেন!

আঘোরীদের খাবার

অন্যান্য সাধুদের চেয়ে আঘোরীদের একটি বড় পার্থক্য হলো খাবার। অন্যান্য সাধুরা যেখানে নিরামিষাশী, সেখানে আঘোরীরা খেতে পারে যেকোন কিছুই। আবর্জনা থেকে শুরু করে মানুষের মাংস এমনকি মানুষের মলমূত্র পর্যন্তও তারা খায়! কারণ? কারণ তারা বিশ্বাস করে শিব সবচেয়ে খারাপের মধ্যেও বিদ্যমান।

আঘোরীদের মূলমন্ত্রই হচ্ছে নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতাকে খুঁজে বের করা। তাছাড়া তারা বিশ্বাস করে মলমূত্র খাওয়া তাদের ভিতরের আত্মঅহমিকাকে ধ্বংস করতে সাহায্য করে। বেঁচে থাকার জন্য তারা যতটুকু দরকার ততটুকুই খায়, তাদের কাছে খাবারের স্বাদ বা চেহারা কোনো বিষয় নয়। তবে বেনারাসের মতো জনবহুল শহরেও কেউ তাদেরকে নরমাংস খেতে বাঁধা দেয় না, কারণ তাদের খাওয়ার জন্য শ্মশানের পোড়ানো মৃতদেহ রয়েছেই।

আঘোরীদের ধ্যান

ধ্যান করার জন্য আঘোরীরা বেছে নেয় শ্মশানকে। একেবারে মধ্যরাত থেকে তারা পোড়ানো মৃতদেহের উপর বসে ধ্যান শুরু করে। তারা বিশ্বাস করে এই সময়টিতে কোনো মানুষ বা কোনো আত্মা ঘোরাফেরা করে তাদের ধ্যানের মনোযোগ নষ্ট করতে পারবে না। এছাড়া তারা ধ্যান করার আগে খানিকটা গাঁজাও টেনে নেয় যাতে ধ্যানের মনোযোগ আরও সুদৃঢ় করতে পারে। এছাড়া তারা দাবী করে, গাঁজার ঘোর তাদেরকে আত্মা দেখতে সাহায্য করে! যদিও গাঁজা টানার পরেও তাদের চোখ থাকে শান্ত-নির্লিপ্ত।

আঘোরীদের ক্ষমতা

আঘোরীরা দাবী করে তাদের কাছে পৃথিবীর সব রোগেরই ঔষধ রয়েছে, যেগুলো ক্যান্সার এমনকি এইডসকেও সারিয়ে তুলতে পারে! তারা এগুলো পোড়ানো মৃতদেহগুলো থেকে সংগ্রহ করে এবং একে বলা হয় ‘মানুষের তেল’! তারা বিশ্বাস করে এগুলো দিয়ে সব রোগই সারিয়ে তোলা সম্ভব কিন্তু মানুষ এগুলো ব্যবহার করে না সামাজিক বাধার কারণে। যদিও বিজ্ঞান দিয়ে তাদের এই দাবীকে কখনো পরীক্ষা করে দেখা হয়নি।

আঘোরীদেরকে বলা হয় পৃথিবীর সেরা কালো জাদুকর। যদিও তারা দাবী করে, তারা এই ক্ষমতা কখনো মানুষের ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে ব্যবহার করে না, বরং মানুষের উপকার করে। কোনো অসুস্থ মানুষের রোগকে তারা কালো জাদুর সাহায্যে মৃতদেহে ঢুকিয়ে দেয় এবং মৃতদেহ পুড়িয়ে রোগটিকে ধ্বংস করে ফেলে!

আঘোরীদের মূলমন্ত্র – “নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতা খোঁজা”

আঘোরীরা বিশ্বাস করে ডান বা ভাল পথের চেয়ে বাম বা খারাপ পথ দ্বারা দেবতার সান্নিধ্য পাওয়া যায় খুবই দ্রুত এবং এটি কার্যকরও হয় আরও গভীরভাবে। যদিও এভাবে সান্নিধ্য পাওয়ার মতো সাহস শুধু আঘোরীদেরই আছে। অমাবস্যার মধ্যরাতে তারা কালীকে খুশি করার জন্য মৃতদেহের সাথে মিলিত হয়! মেরোনাথ নামক এক আঘোরী সাধুর ভাষায়, “আমাদের এই কাজকর্ম বাইরের দুনিয়ায় অতি অস্বাভাবিক মনে হতে পারে, কিন্তু আমরা নোংরামির মধ্যে বিশুদ্ধতা পাওয়ার চেষ্টা করি। যদি কেউ মৃতদেহের সাথে মিলিত হবার সময়ও দেবতার উপর মনোযোগ রাখতে পারে তবে বুঝতে হবে সে সঠিক পথে রয়েছে।” এছাড়াও তারা বিশ্বাস করে, এর ফলে তাদের মধ্যে অতিপ্রাকৃত ক্ষমতার সৃষ্টি হয়! মিলিত হবার সময় অন্যান্য সাধুরা বৃত্তাকারে ঘুরতে ঘুরতে মন্ত্র জপতে থাকে এবং শ্মশানে বাজতে থাকে ঢাকের বাজনা!

লেখার শুরুটা হয়েছিল গল্প দিয়ে, শেষটা করা যাক একটা বাস্তব ঘটনা দিয়ে।

আঘোরী সাধুদের মধ্যে বোধহয় সবচেয়ে বিখ্যাত ছিলেন তৈলঙ্গ স্বামী। যা-ই হোক, বেনারাস শহরের কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরের এক পুরোহিত একদিন দেখতে পান তৈলঙ্গ স্বামী তার গোপনাঙ্গ দিয়ে শিবের পূজা করছে! দেখার সাথে সাথে তিনি তৈলঙ্গ স্বামীকে চড় মেরে তাকে মন্দির থেকে তাড়িয়ে দেন এবং পরের ঘটনা সহজেই অনুমেয়। পরদিন সকালেই পুরোহিত আকস্মিকভাবেই মারা যান কোনোরকম আঘাত বা বিষ প্রয়োগ ছাড়াই!

সবচেয়ে বিখ্যাত আঘোরী সাধু – “তৈলঙ্গ স্বামী”

 

তথ্যসূত্রঃ

১) en.wikipedia.org/wiki/Aghori

২)fireflydaily.com/skulls-sex-trance-the-dark-and-mysterious-world-of-aghoris/

৩) desinema.com/15-jaw-dropping-facts-about-aghoris/

৪) speakingtree.in/allslides/sex-rituals-of-aghori-sadhus

Published Fri 3rd March 2017 

ক্যাম্প – ২২, পৃথিবীতে বিদ্যমান এক নরক, যেখানে কেউ একবার প্রবেশ করলে আর বের হতে পারে না। যেখানে মানুষকে মানুষের চোখে দেখা হতো না, যেখানে মানুষকে ব্যবহার করে ভয়াবহ সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করানো হতো, যেখানে প্রসূতি নারীদের সরাসরি পেট কেটে ভ্রূণ বের করে ফেলা হতো, কখনো বা বড় তক্তা দিয়ে পিষে পিষে গর্ভপাত করানো হতো ৮-৯ মাসে প্রসূতিকে! যেখানে অভুক্ত শিশুরা এক কণা খাদ্যের জন্য প্রহরীর লাথি খেয়ে পচা ডোবায় পড়ে মরে, যেখানে নারীদের নৃশংসভাবে ধর্ষণ ও নির্যাতন করে মেরে ফেলে হতো।

উত্তর কোরিয়ার Haengyong Concentration Camp-কে ক্যাম্প ২২ বলা হয়। এখানে সেসব মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়া হয় যারা রাজনৈতিক সমালোচনা বা রাজনৈতিকঅপরাধী। আরো ভালোভাবে বলতে গেলে উত্তর কোরিয়ার Great Leader-দের বিরুদ্ধে কোনো সমালোচনা বা রাষ্ট্রদ্রোহিতা করলেই অপরাধী নিজে তো জেলখানায় যাবেই, তার সাথে সাথে তার ৩ প্রজন্মকেও জেলখানায় পচতে হতো, এমনকি জেলখানায় জন্মানো শিশুটিও নিস্তার পেত না!

উত্তর কোরিয়ার উত্তর পূর্ব সীমান্তে হোয়ের ইয়ং কাউন্টিতে ২২৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এই নরকের অবস্থান। চারদিকে পাহাড়ে ঘেরা এই ক্যাম্প ১০ ফুট চওড়া ৩,৩০০ ভোল্টের বৈদ্যুতিক বেড়া দিয়ে আবৃত। কঠোর নিরাপত্তা এবং ক্যাম্প পরিচালনার জন্য প্রায় ১,০০০ অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত এবং প্রশিক্ষিত কুকুরসমেত পাহারাদার এবং ৫০০৬০০ কর্মকর্তা রয়েছে। কিছু দূর পর পর ল্যান্ড মাইন এবং মানুষ মারার গোপন ফাঁদ রয়েছে। প্রায় ৫০ হাজার নারী পুরুষ ও শিশুবন্দী ছিল বলে জানা যায়। এরকম ভয়াবহ নরক উত্তর কোরিয়ায় আরো রয়েছে। এসব ক্যাম্পের বন্দীদের দিয়ে চাষবাস থেকে শুরু করে কারখানার কাজও করানো হয়। উত্তর কোরিয়ার অর্থনীতির একটা বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে এই ক্যাম্পগুলোর শিল্পোৎপাদন।

পাঠকের মনে প্রশ্ন আসতেই পারে- এত কঠোর নিরাপত্তার পরও বহির্বিশ্বের মানুষ কীভাবে এই ক্যাম্পগুলোর অস্তিত্ব এবং এর কর্মকাণ্ড কীভাবে জানতে পেরেছে? চলুন জেনে নেই সেই সব মানুষের কাছ থেকে যারা এক সময় এই ক্যাম্পে কর্মী হিসেবে ছিলেন এবং কেউবা পালিয়ে এসেছেন সেই নরক থেকে।

উত্তর কোরিয়ার স্বৈরশাসক Kim Il Sung এবং Kim Jong Il তাদের বিরোধীদের দমনের জন্য এই ক্যাম্প তৈরি করেছেন। বহির্বিশ্ব এবং দেশের মানুষের অগোচরে নিরিবিলি সব জায়গায় তৈরি করেছেন এসব জেলখানা যেখানে হতভাগা অপরাধীকে পরিবার এবং বংশসহ নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন বর্বরতার নজির খুব কম। কিন্তু সেই কঠোর নিরাপত্তাকে খুব সহজেই ভেদ করেছে স্যাটেলাইট। চলুন দেখে নেই স্যাটেলাইটের তোলা কিছু ছবি।

ডেভিড হক নামক এক মানবাধিকার গবেষক ক্যাম্প ২২ নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করেন। তিনি ক্যাম্পের কিছু প্রাক্তন পাহারাদার এবং পালিয়ে আসা বন্দিদের কাছ থেকে বেশ কিছু সাক্ষাৎকার নেন। ম্যাং চল নামক এক প্রহরী গুগল আর্থের তোলা ছবিগুলো দেখে প্রত্যেকটি ভবন এবং সেসব ভবনের কাজ কর্ম থেকে শুরু করে কী ধরণের নির্যাতন করা হতো সব কিছুর বর্ণনা দেন।

ডিটেনশন সেন্টার দেখিয়ে বলেন, কেউ যদি একবার এখানে ঢোকে, তবে তিন মাসের মাঝে মারা যাবেই। আর না মারা গেলেও সারা জীবনের জন্য অথর্ব হয়ে যাবে।” কাজে গাফলতি কিংবা সারাদিনের বরাদ্দ কাজ যদি কোনো বন্দী শেষ করতে না পারে, তবে প্রথমবারের জন্য তার খাবার বন্ধ করে দেয়া হয়। একই কাজ যদি সে তৃতীয়বার করে, তবে তাকে সরাসরি ডিটেনশন সেন্টারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। আর ডিটেনশন সেন্টার মানেই সাক্ষাত মৃত্যু।

কিম ২ সাং ইন্সটিটিউট দেখিয়ে তিনি বলেন, এটা অফিসারদের সিনেমা হল এবং পাশেই গার্ড ট্রেনিং সেন্টার।” একটি ময়লা ফেলার পচা ডোবা দেখিয়ে বলেন, এই পচা পুকুরে ২টি শিশুর মৃত্যু হয় গার্ডের লাথিতে কারণ তারা ছোট্ট এক টুকরা নুডুলস নিয়ে কাড়াকাড়ি করছিলো।

এখানে গার্ডদের ট্রেনিং এর সময় বলা হতো, ক্যাম্পের বন্দীরা মানুষ নয়, তাদের সাথে কুকুর বিড়ালের মতো আচরণ করতে হবে। আর গার্ড চাইলেই যেকোনো বন্দীকে যখন খুশি মেরে ফেলতে পারবে। এ ব্যাপারে কোনো জবাবদিহি করতে হবে না। কখনো কখনো এমন হয়েছে, কোন বন্দীকে তলবের পর তার আসতে খানিক দেরি হয়েছে বা দুর্বলতার ধীর পায়ে হেঁটে এসেছে, এই অপরাধের জন্য গার্ড সেই বন্দীকে মেরে ফেলেছে।

ক্যাম্পের বন্দীদের কাছে মৃত্যু খুব স্বাভাবিক একটি ঘটনা। কারণ প্রতিদিন কেউ না কেউ চোখের সামনে মারা যায়। তবে মৃতদের মাঝে শিশুদের সংখ্যাই বেশি। হতভাগা শিশুদের বাবা মাও জানতে পারে না কখন কোথায় তাদের আদরের সন্তানটি মারা গেছে। সেখানে মরাকান্নাও নিষিদ্ধ। ম্যাং চলের ভাষ্যমতে, প্রতি বছর প্রায় ২,০০০ এর অধিক বন্দী মারা যায়। কখনো গার্ডের হাতে, কখনোবা অতি পুষ্টিহীনতায় কিংবা নির্যাতনের কারণে।

ক্যাম্পগুলোতে বন্দীদের অমানবিক পরিশ্রম করানো হতো। চাষের ক্ষেত থেকে শুরু করে খনি এবং ফ্যাক্টরিগুলোতে সপ্তাহে ৭ দিন দৈনিক ১৫ ঘন্টা কাজ করতে হতো। গ্রীষ্মে সকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কাজ করতে হয়। ছুটির দিন বলতে বছরের প্রথম দিন। অবশ্য ২০০৩ সালের পর কিম জন উনের জন্মদিন উপলক্ষে ক্যাম্পগুলোতে ৪ দিন সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়। এতটাই ‘মহান’ নেতা কিম!

এক রুমে ১০০ জন করে বন্দী থাকতো। সবাই গণ টয়লেট যা কখনোই পরিষ্কার করা হতো না। বড় কাজ শেষে তারা শুকনো পাতা দিয়ে পরিষ্কার হত। যেসব বন্দীরা ভালোভাবে কাজ করে, তারা মাঝে মাঝে পরিবারের সাথে থাকার সুযোগ পেত। থাকার জন্য ছোট্ট রুম বরাদ্দ থাকে, যাকে রুম না বলে খুপরি বলা চলে।

আর খাবারদাবার বলতে দিনে ২ বার ১৮০ গ্রাম পরিমাণ ভুট্টা দেয়া হতো। কোনো ধরণের সবজি কিংবা মাংসের ছোঁয়া পেত না বন্দীদের জিহ্বা। বন্দীরা অবশ্য হাতের কাছে যা পেত তারই মাংস খেতো, যেমন ইঁদুর, সাপ এবং ব্যাং যখন যা খুঁজে পেত। তবে প্রহরীদের চোখে পড়লে বেশ বিপদে পড়তে হতো বেচারাদের। তাই কখনো কখনো ইঁদুরের পচা মাংস কিংবা চামড়া না ছাড়িয়েই খেতো যাতে প্রহরীরা দেখতে না পায়। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় শিশুরা। ১০ বছর বয়স হওয়ার আগেই অনেক শিশু পুষ্টিহীনতায় মারা যায়।

ম্যাং চল যখন প্রহরী হিসেবে ক্যাম্পে আসেন, তখন তিনি দেখতে পান জীবন্ত সব কঙ্কাল ঘুরে বেড়াচ্ছে। কারো অক্ষিকোটরে একটি চোখ নেই, তো কারো সারা শরীর আগুনে পুড়ে গেছে, কারো বা ২টি পা নেই কিংবা কোনো না কোনো অঙ্গ বিকৃত কিংবা কারো হাতের হাড় ভেঙ্গে বের হয়ে এসেছে। কারো আবার গালে এক পাটি দাঁত নেই। বন্দীদের দশা এতটাই করুণ!

তিনি বলেন ৩০ ভাগেরও বেশি বন্দী শারিরিকভাবে কাজে অক্ষম। কারণ তাদের এমন নির্যাতন করা হয় যে তিন মাসের মাঝেই মৃত্যু নিশ্চিত। নতুন নতুন বন্দীদের জায়গা দিতে হয় বলে মানুষকে পিঁপড়ার মতো করে পিষে মেরে ফেলা হয়। কখনোবা বন্দীদের থাকার যায়গায় ইচ্ছাকৃত আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। শত শত বন্দী নির্বিচারে মারা যায়, কেউবা ঝলসানো শরীর নিয়ে দিনের পর দিন কাজ করে যায়।

বন্দীদের মৃতদেহের সৎকার তো দূরেই থাক বরং যে বর্বরতার সহিত সেই লাশগুলোর একটা ‘গতি’ করা হয় তা শুনলে আপনার গায়ের লোম খাড়া হয়ে যাবে। চংজিন পাওয়ার প্ল্যান্ট, চংজিন স্টিল মিল এবং কিমচেক স্টিল মিলের কয়লার সাপ্লাই দেয়া হয় ক্যাম্প ২২ থেকে। পাঠক কি কিছু আন্দাজ করতে পারছেন কি হয় সেই হতভাগা বন্দীদের লাশের? অধিকাংশ লাশ ট্রাকে করে পাঠানো হতো কয়লা বানানোর জন্য। কয়লার মিশিয়ে লাশগুলোকে বড় বড় চুল্লিতে পুড়িয়ে কয়লা বানানো হতো। আর যে ছাই পাওয়া যেত তা জমিতে ব্যবহার করা হতো উর্বরতার জন্য।

তিনি আরো বলেন- ক্যাম্পে সয়া সস, বিস্কুট এবং বিনপেস্টের একটি কারখানা রয়েছে যেখানে শুধুমাত্র ২০-৩০ বছর বয়সী সুন্দরী নারীরা কাজ করে। আর তাদের পরনে থাকে পাতলা সাদা কাপড়। কর্তব্যরত অফিসার এবং গার্ডরা তাদের যখন ইচ্ছা ধর্ষণ করে। যদি কোনো নারী বাধা প্রদান করে, তাকে ধর্ষণ করে মেরে ফেলা হয় কিংবা গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়। এমনকি কিছু কিছু ক্যাম্পে নিয়ম করে নারীদের ধর্ষণ করা হয়।

সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাপারটি ঘটে নারীরা যখন গর্ভবতী হতো। ক্যাম্পে নারী বন্দীদের গর্ভবতী হওয়া সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কারণ এতে ক্যাম্পের জনসংখা বৃদ্ধি পাবে। কোনো নারী যদি সন্তান প্রসব করেও ফেলে তবে সদ্যজাত শিশুটিকে দেয়ালে আছড়ে মারা হয় কিংবা মাকে বাধ্য করা হয় নিজের সন্তানকে হত্যা করতে। গর্ভবতী নারীদের জোরপূর্বক পেট কেটে গর্ভপাত করানো হতো।

কখনো বা ভারিপাথর হাতে নিয়ে দৌড় দিতে বলা হতো কিংবা গর্ভবতীর পেটের উপর বড় তক্তা বসিয়ে ২ পাশ থেকে ২ জন চাপ দিত। গর্ভপাতের বিষয়টি এতটাই ভয়াবহ যে অনেকসময় বন্দিনী মারাও যেত।

এবার আসা যাক ক্যাম্পের অফিশিয়াল নির্যাতনের প্রসঙ্গে।

বন্দীরা সবচেয়ে বেশি ভয় পায় এই নির্যাতন প্রক্রিয়াকে। বন্দীদের হাত মোটামুটি ৬০ সেন্টিমিটার উপরে একটি গরম পানির পাইপের সাথে বাঁধা হয়। এ অবস্থায় না পারা যায় বসতে, না পারা যায় দাঁড়াতে। তখন গার্ড ইচ্ছামত মোটা মুগুর সদৃশ লাঠি দিয়ে পিটায়, লাথি দেয় কিংবা ঘুষি মারে। এভাবে টানা কয়েকদিন চলতে থাকলে এক সময় শরীর প্যারালাইজড হয়ে যায় এবং বুকের সাথে হাতের সন্ধি খুলে আসে।

Kneeling Torture বলে এক ধরণের নির্যাতনে বন্দীর পায়ে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায় এবং কিছুদিন পর প্যারালাইজড হয়ে বন্দীর মৃত্যু ঘটতে বাধ্য। প্রথমে বন্দীকে হাঁটু গেড়ে বসানো হয়। তারপর হাঁটুর দুই হাড়ের সংযোগস্থলে একটি চ্যালা কাঠ বসিয়ে দেয়া হয় যাতে পায়ে রক্ত সঞ্চালন বন্ধ হয়ে যায়।

জোরপূর্বক পানি খাওয়ানোর নির্যাতনে প্রথমে অপরাধীকে একটি টেবিলের উপর শক্ত করে বাঁধা হয় এবং জোরপূর্বক ঠেসে ঠেসে পানি গেলানো হয়। তারপর একটি তক্তা পেটের উপর বিছিয়ে নির্যাতনকারী তার উপর শুয়ে পড়ে। এতে পাকস্থলি থেকে পানি সব বের হয়ে পড়ে।

পানিতে নিমজ্জন বলে আরেক ধরণের শাস্তির ব্যবস্থা রয়েছে। বন্দীর মাথা একটি প্লাস্টিকের ব্যাগে পুরে ফেলে পা উলটিয়ে মাথা পানিতে ডুবিয়ে দেয়া হয়। দীর্ঘ সময় ধরে এই শাস্তি দেয়া হলে বন্দী মারা যায়।

পানিতে আরেক ধরণের নির্যাতন করা হয়। একটি পানি ভর্তি ট্যাঙ্কিতে বন্দীকে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ট্যাঙ্কে পানির উচ্চতা থাকে বন্দীর নাকের উচ্চতার খানিক বেশি। তাই বন্দীকে সর্বদাই পায়ের আঙ্গুলের উপর দাঁড়িয়ে থাকতে হয়, এসময় হাত পেছন থেকে বাঁধা থাকে।

মাঝে মাঝে অফিসারগণ তাদের মনের সুখ মেটাতে উল্টো করে ঝুলিয়ে মুগুর সদৃশ লাঠি দিয়ে এমন বর্বরতার সহিত বন্দীকে প্রহার করে যে হাড় ভেঙ্গে শরীর থেকে বের হয়ে চলে আসতো। বিষয়টা আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতো যখন অফিসারের মেজাজ চরমে থাকতো।

জ্ঞান বিজ্ঞানের নানা পরীক্ষা নিরীক্ষায় এই বন্দীদের ব্যবহার করা হতো। গ্যাস চেম্বারে বিভিন্ন গ্যাসের পরীক্ষা নিরীক্ষায় এবং নতুন কোনো ঔষধের পরীক্ষা করতে এদের ব্যবহার করা হতো। সবচেয়ে পৈশাচিক ব্যাপার হলো- অস্ত্রোপচারের সময় কোনো চেতনানাশক বা অ্যানেস্থেশিয়া ব্যবহার করা হতো না। হাতভাগা বন্দীদের আর্তচিৎকার পরীক্ষারত ডাক্তার ও বিজ্ঞানীদের পাশবিক আনন্দ দিত।

Kwon Hyok নামক এক নিরাপত্তা প্রধান বলেন- একবার তাকে বলা হয়েছিল ৩-৪ জন বন্দীকে ধরে নিয়ে আসতে। একটি দম বন্ধ হয়ে আসে এমন গ্যাসের পরীক্ষার জন্য তাদের ব্যবহার করা হবে। স্বাভাবিকভাবেই তিনি একটি পরিবারকে নিয়ে আসেন। একটি কাচের তৈরি চেম্বারে তাদের ঢুকিয়ে গ্যাসটি ছেড়ে দেয়া হল, পুরো পরিবারটি যখন বেঁচে থাকার জন্য প্রচন্ড আকুলিবিকুলি করছিলো, তখন মা এবং বাবা বাচ্চা দুটির গালে মুখ দিয়ে তাদের বাঁচানোর চেষ্টা করছিলো, কিন্তু বিধি বাম। পুরো পরিবারটিকেই গ্যাসে অবরুদ্ধ হয়ে মারা যেতে হয়েছিল। এ তো গেল একটি ঘটনা মাত্র। প্রতিনিয়ত ভয়াবহ সব পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হতো এই হতভাগা মানুষগুলোর উপর।

ক্যাম্প ২২ বর্তমানে বন্ধ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। ক্যাম্প ২২ বন্ধ হলেও মুক্তি পায়নি তার বন্দীরা। ২০,০০০ বন্দীর মাঝে মোটামুটি ৮,০০০ বন্দীকে ক্যাম্প ২৫ এ পাঠানো হয়েছে। কিন্তু বাকিদের কোনো হদিস নেই। ধারণা করা হয়, ২০০৯ সালের মুদ্রা মুল্যহ্রাসের ফলে ক্যাম্প অথোরিটি পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার কিনতে না পারায় এবং সেই বছর ক্যাম্পের নিজস্ব ফলন অনেক কম হওয়ায় অনেক বন্দী অনাহারে মারা যায়। ২০১২ সালে স্যাটেলাইটে তোলা ছবিতে দেখা যায় গার্ড হাউজগুলো ভেঙ্গে গেছে, কিছু স্থাপনা ভেঙ্গে যাবার পথে।

তথ্যসূত্র

  • nbcnews.com/id/3071468/#.WLaPPzt97IU

  • en.wikipedia.org/wiki/Human_experimentation_in_North_Korea

  • en.wikipedia.org/wiki/Hoeryong_concentration_camp

  • dailymail.co.uk/news/article-2414911/North-Koreas-Camp-22-prisoners-disappeared-claim-human-rights-group

  • en.wikipedia.org/wiki/Yodok_concentration_camp

Story Of Depression

বাংলাদেশে ৬৪ লাখ মানুষ বিষণ্নতায় ভুগছে

বাংলাদেশে আনুমানিক ৬৪ লাখের বেশি মানুষ বিষণ্নতায় ভুগছে এবং উদ্বেগসংক্রান্ত সমস্যায় ভুগছে প্রায় ৬৯ লাখ মানুষ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

দেশের মোট জনসংখ্যার ৪ দশমিক ১ শতাংশ বিষণ্নতায় ভুগছে, এছাড়া উদ্বেগসংক্রান্ত সমস্যায় ভুগছে মোট জনসংখ্যার ৪ দশমিক ৪ শতাংশ।

‘ডিপ্রেশন অ্যান্ড আদার কমন মেন্টাল ডিসঅর্ডার্স: গ্লোবাল হেলথ এস্টিমেট’ শীর্ষক এক প্রতিবেদন এ তথ্য দিয়েছে সংস্থাটি।

বলা হয়েছে, বাংলাদেশে মোট ৬৩ লাখ ৯১ হাজার ৭৬০ জন বিষণ্নতায় ভুগছেন। এছাড়া ৬৯ লাখ ২১২ জন ভুগছেন উদ্বেগ সংক্রান্ত সমস্যায়।

বিশ্ব ব্যাংক বলছে, গোটা বিশ্বে যত মানুষের বাস ২০১৫ সালে তার ৪ শতাংশেরও বেশি মানুষ বিষণ্নতায় ভুগেছে। গত ১০ বছরে এ হার ১৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

মানসিক ও শারিরীক প্রতিবন্ধকার জন্য বিষণ্নতাকেই সবচেয়ে বড় কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। একই সমস্যার জন্য উদ্বেগকে চিহ্নিত করা হয়েছে ষষ্ঠ কারণ হিসেবে।

বাংলাদেশের প্রতিবেশি দেশগুলোর মধ্যে ভুটানে বিষণ্নতায় ও উদ্বেগসংক্রান্ত সমস্যায় ভুগছে যথাক্রমে ৪ দশমিক ২ ও ৩ দশমিক ৭ শতাংশ মানুষ, ভারতে ৪ দশমিক ৫ ও ৩ শতাংশ মানুষ, মিয়ানমারে ৩ দশমিক ৭ ও ৩ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ, শ্রীলঙ্কায় ৪ দশমিক ১ ও ৩ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে বলছে, ২০১৫ সালে সারা বিশ্বে ৭ লাখ ৮৮ হাজার মানুষ আত্মহত্যা করেছেন। এর চেয়ে অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের মৃত্যুর জন্য আত্মহত্যা দ্বিতীয় কারণ।

সূএ: বিডি লাইভ২৪।

How Did Nietzsche Become the Most Misunderstood & Bastardized Philosopher

A Video from Slate Explains

http://c.brightcove.com/services/viewer/federated_f9?isVid=1&isUI=1

Is there a more misunderstood philosopher than Friedrich Nietzsche? Granted, the question makes two assumptions: 1) That people read philosophy 2) That people read Friedrich Nietzsche. Perhaps neither of these things is widely true. Many people get their philosophy from film and television: Good Will Hunting, True Detective, Coming to America…. There’s nothing inherently wrong with that. I don’t read medical books. Most of my knowledge of medicine comes from hospital dramas. (If you ever hear me make unsourced medical claims, please remind me of this.)

But back to Nietzsche…. If few people read philosophy in general and Nietzsche in particular, why is his name so well-known, why are his ideas so badly mangled? Because some of the people who read a little Nietzsche write films and television shows. In many of them, he emerges as a twisted nihilist with no scruples and little regard for human life. In the most infamous case of Nietzsche-twisting, the philosopher’s sister extracted from his books what she wanted them to say, which sounded very much like the ideas of the Nazis who later quoted him.

Nietzsche’s mastery of the aphorism and his fiercely polemical nature have made him supremely quotable: “God is dead,” “What does not kill us, makes us stronger.” And so on. Bring the context of these statements to bear and they sound nothing like what we have imagined. The video above from Shon Arieh-Lerer and Daniel Hubbard explains how Nietzsche became “the most absurdly bastardized philosopher in Hollywood.” It leads with a tellingly hilarious clip from The Sopranos in which A.J. calls the philosopher “Niche” and Tony tells him, “even if God is dead, you’re still gonna kiss his ass.”

We might half expect Tony to embrace the German philosopher. The way Nietzsche’s been interpreted seems to justify the principles of sociopaths. This should not be so. “In reality,” the video’s producers write at Slate, “Nietzsche was a very subtle thinker.” The two biggest misconceptions about Nietzsche, that he was a nihilist and an anti-Semite, get his philosophy grievously wrong. Nietzsche “wrote letters to his family and friends telling them to stop being anti-Semitic” (and calling anti-Semites “aborted fetuses.”) He famously broke off his intense friendship with Richard Wagner in part because of Wagner’s anti-Semitism. His work is not kind to Judaism, but he rages against anti-Semitism.

Far from endorsing nihilist ideas, Nietzsche feared their rise and consequences. So how did he become “a darling of Nazis and sad teenagers?” The caricature arose in part because readers from his day to ours have, like Tony Soprano, found his complete and total rejection of Judeo-Christian morality too shocking to get beyond, mischaracterizing it as tantamount to the rejection of all human values. On the contrary, Nietzsche argued for the “revaluation” of values, “the exact opposite of what one might expect,” he wrote,” not at all sad and gloomy, but much more like a new and barely describable type of light, happiness, relief, amusement, encouragement, dawn.”

Of course, the fact that Nietzsche—or a butchered version thereof—was co-opted by the Nazis did more to sully his name than anything he actually wrote. “By the time Nietzsche made his way into American pop culture,” says Arieh-Lerer, “we were predisposed to getting him wrong.” Nietzsche may have had some strange quasi-mystical conceptions, and he believed in a definite hierarchy of cultures, but he was not a racist or a psychopath. He has been as misunderstood as many of the sad teenagers who love him. Perhaps you will be moved to read him for yourself after seeing his rehabilitation above. If so, we can point you toward online editions of nearly all of his books here.

Related Content:

What Did Nietzsche Really Mean When He Wrote “God is Dead”?

Download Walter Kaufmann’s Lectures on Nietzsche, Kierkegaard, Sartre & Modern Thought (1960)

The Digital Nietzsche: Download Nietzsche’s Major Works as Free eBooks

Josh Jones is a writer and musician based in Durham, NC. Follow him at @jdmagness

10 Best Babymetal Songs Of All Time

Features / 06 Jul 2016 / by Eleanor Goodman

Your guide to the top 10 songs that made Babymetal a worldwide phenomenon.

 

Brought high-kicking, screaming and singing to life by the mysterious Fox God, Babymetal crashed into our world and immediately divided opinion. While some loved their approach of welding Kawaii to kick drums, others felt Su-Metal, Yuimetal and Moametal were making a mockery of the very scene they purported to love. Now a global phenomenon and set to play to 100,000 people across two nights at Japan’s Tokyo Dome in September, it’s time to put your kitsunes up for their best songs.


10) Babymetal Death (Babymetal, 2014)

As the intro track in their live set, this song sets out Babymetal’s stall. There’s a sweeping, filmic choral intro, their name’s spelled out by unearthly voices and each member sweetly introduces themselves. Though light on lyrics, it’s the soundtrack to a grand conjuration from their vulpine creator.

9) Doki Doki Morning (Babymetal, 2014)

Coming across like a cereal commercial that someone’s recorded riffs over for a laugh, this is Babymetal at their most unashamed. Its sweeping industrial gloss comes courtesy of Takeshi Ueda from now-defunct metallers The Mad Capsule Markets, and turned idol fans on to the idea of heavy music.

8) Road Of Resistance (Metal Resistance, 2016)

Teaming up with Dragonforce was bound to turn up the power metal ante and raise the tempo, but no one could have predicted how insanely fast the fretwork would be. After hours of rehearsals from both camps, their performance of the song at 2016’s Golden Gods awards was a triumph.

7) GJ! (Metal Resistance, 2016)

Sung by Black Babymetal – aka Yuimetal and Moametal – this duet boasts big riffs, propulsive verses and a clean breakdown that are all tailor-made for headbanging. It’s no wonder, then, that the lyrics pay tribute to the love of the mosh. The poppy melodies offer a chance for some bonus fist-pumping.

Continued below…

DON’T MISS…

Feature / 21 Jun 2016Hot new band: Whispered – melodic death metal from Japan
News / 12 May 2016Rob Zombie: Babymetal roll harder than you
Feature / 17 Jul 2014Kawaii So Serious: Talking to the mastermind behind Babymetal
Feature / 13 Aug 2014Who the hell are X Japan?

 

6) Gimme Chocolate!! (Babymetal, 2014)

The original, the classic, the song that launched Babymetal to thousands of bewildered pop and metal fans the world over. The refrain is more saccharine than a gallon of Cadbury’s Creme Eggs, but the lyrics are oddly feminist, discussing the pressure on women to maintain a certain weight and image.

5) Awadama Fever (Metal Resistance, 2016)

Referencing chewing gum and bubble gum, Awadama Fever’s high-pitched chorus is the spiritual successor to Gimme Chocolate!!. It’s as if Babymetal have consumed a zillion sweet treats in one go, breezing through this sugar-rush of a heavy drum’n’bass song with boundless energy and smiles plastered across their faces.

 
 

(Photo: Getty)
 

4) Awadama Fever (Metal Resistance, 2016)

It’s Babymetal’s first battle metal song! Expanding on the victorious vibe of Road Of Resistance, it offers a marching beat and assertive chanting, while the girls sing in unison with military precision. The best bit? The folk metal accordion, which would be completely incongruous in any other tune by the trio.


3) The One (Metal Resistance, 2016)

The One shouldn’t work. A mash-up of ’80s guitar soloing, the closing number of a musical and the pure sheen of Disney, it’s the sonic equivalent of a year-old slab of brie. But watch them perform it while floating over the crowds in a giant pyramid, and the feeling of elation is undeniable.

2) Rondo Of Nightmare (Babymetal, 2014)

Parts of this sound genuinely sinister. Most Babymetal songs have a breakout sing-along moment or bouncing beat, but this one rolls along like a runaway ghost train powered by mechanical drums and chaotic piano. Even the usually upbeat Su-metal sounds uncharacteristically tortured, wailing mournfully in the bridge.

1) Karate (Metal Resistance, 2016)

Their slickest genre fusion yet. It opens with a chunky nu-metal riff, before Su-Metal’s captivating minor vocal line comes in, switching to a major key for the band’s best-ever chorus. Listening to this triggers your cells to make 100% more serotonin. Fact. Altogether now: ‘Oh-oh, oh-oh, oh-ohhhhh!’


 

Story Of Reality

Image may contain: 1 person
 

I move from places to places. From villages to villages. Everyone calls me beggar Kulsum. You can call me too. No one knows from where I have come from. I never tell anyone who am I.

I had a mansion, surrounded by three ponds and four gardens. It was always hard to fall in sleep because the smell of the flowers was so strong at night. Often times I felt heaven is my home. And there was always my supportive husband.

Every morning I prepared uncountable cakes for him and he never let me to wear same saree more than a few times. I never allowed my maids to clean our in-houses; they were responsible for only outhouse.

I had passed forty seven years of our marriage life by making cakes, watering trees and wakening up at nights alone when he left for business in far places. I got married when I was ten; my husband was the only friend I had. I had passed my married life by making cakes and wondering at our beautiful gardens. My husband never let me feel alone in our child less life.

I remained happy in his light. One day I went to see one of my sick maids, there I accidently met a woman who was wearing the same wedding bangle I had. Eventually by my maid I found out that my husband kept his second marriage secret from me for twenty years. There he had two daughters and a son. I spent my nights by looking at his face and realized how much he had loved me. May be every day he thought to leave me, may be in every festival he wanted to spend his time with his new family, maybe he felt guilt when I put my right hand every night on his chest. ..

Because he had loved me and I was his only friend too. I wanted him to be happy without regret. I also wanted a happy memory of my very loving husband with our all ponds and gardens…I convinced one of my loyal maid to spread the news that I accidentally fell in river and swept away. She did it by the exchange of all my gold ornaments. You are talking to dead Umme Kulsum. She died twenty years ago. No one cried for her, neither I. Sometimes people ask me what they will do when I will die and what my last wish is. I said it to no one before you. If ever he arrives by searching me tell him I missed our home, gardens and him every single second of my life. But I wanted him to be free from my love.

His happiness is what I wanted if required by my life. And I do not regret what I had done. Sometimes in love you have to leave.

– Umme Kulsum