7 Habits of Highly Attractive People

 

The law of attraction is this: You don’t attract what you want. You attract what you are.

– Dr. Wayne Dyer

Quick question: Have you ever wondered what makes someone attractive?

It’s commonplace for us to place a particular emphasis on certain things – intelligence, looks, humor, etc. – and for good reason. Human beings are wired to search for certain attributes in someone else when determining who we invite into our lives.

 

But for many of us, we can’t quite articulate what makes someone attractive. Many of us “just know.” Call it a gut feeling or intuition, but we know it when we feel it. Attraction is a broad and complex thing. It can be intimate or platonic; physical or emotional; rational or emotional.

Some of us are attracted to people that ultimately end up hurting us – something that is perplexing and inexplicably inviting at the same time. Some of us are attracted to people that imitate our values, aspirations and purpose. Some of our inclinations and thoughts evolve, including on what makes someone attractive or unattractive.

Individualistic tendencies aside, there are certain behaviors that tend to attract more people than they repel. Most of us would agree that spending time with someone that is negative and pessimistic is not something we’d enjoy. We’re repelled by these types of behaviors, which are unattractive to say the least.

On the other hand, we appreciate the people in our lives that display genuinely positive behaviors and actions. This leads us to the topic at hand: what makes for an attractive personality.

HERE ARE 7 HABITS OF HIGHLY ATTRACTIVE PEOPLE:

Related article: 10 Habits That Make You More Attractive

1. SENSE OF HUMOR

This life can be difficult at times. We’re faced with various challenges that test even the strongest among us. As such, the ability to ease up and laugh once in a while is an important attribute. This laughter can be directed towards others or ourselves, as long as there are good intentions behind such actions. Needless to say, a sense of humor is incredibly attractive – both in friends and potential mates. Who wants to be around a stiff all the time?

 

2. PASSION FOR LIFE

Most of us appreciate the passion that others embody. Passion breeds purpose, which in turn breeds direction and enthusiasm. To say that life is nothing without a passionate outlook is not an overstatement – we all need something to live for, even struggle for.

Passion is attractive because it’s often selfless. We can navigate the turbulence of life when we deeply believe in a purpose – be it friends, family, love, work or something else.

3. DECISION-MAKING ABILITY

Decisiveness is attractive because it shows a sense of direction. This attribute is perhaps most attractive in a potential mate, as the ability to make a difficult decision is something that will ultimately come about. Rashness, on the other hand, is not attractive. Rational decisiveness is an attractive and increasingly uncommon trait to find in someone else.

4. KINDNESS TOWARDS OTHERS AND SELF

We strive to be around people that are kind towards others. For many of us, not only is it an attraction, but a requirement. This means being kind to strangers and friends alike. Showing empathy and displaying random acts of kindness is what it means to be a good human being.

5. AN OPEN MIND

Closed-mindedness is a sign of ignorance – something that most of us detest. Why do many of us think of politics and organized religion as emotionally draining? Among many reasons is the division created between groups of people. An open mind can resolve many of these divisions, if only we’d be willing to more widely examine the notion as a society.

6. DISPLAYING CONFIDENCE

This can be a difficult one in practice. Most (all?) of us have insecurities, but some are able to focus on the things that make them a good person. Further, we want to be around people that have confidence in themselves, as they’re often able to make even the most insecure person comfortable. Confidence is not only attractive, it’s contagious.

7. ACCEPTING OF OTHERS

Many of the world’s problems today can be attributed to one thing: the inability to accept people for who they are. How many conflicts are going on right now because of the unwillingness of one group of people to simply accept another group? Needless to say, those that are accepting to others have a tendency to attract those of the same ilk. When someone is accepting of others, they’re more likely to display love towards others.

30 Best Sunsets In The World

Sunsets may seem a little less hopeful than sunrises, but don’t they look magnificent? What’s going to follow is a battle of the best sunsets around the world, and I’m going to do it by country. This is just my opinion and mine is what only matters now. Ha!

30. Japan

needs replacements

That toriii, and that sunset peeking from behind the mountains… amazeballs. But, this is just the start.

29. Oman

needs replacements

Refreshing sight. A+.

28. Denmark

needs replacements

Wishing I was standing on those rocks while this happened.

27. Trinidad and Tobago

needs replacements

This makes me want to dance the Samba. Setting’s killing it!

26. Germany

needs replacements

Slay me. I could stare at this forever.

25. Saudi Arabia

needs replacements

Guess the two camels like the view, too. What do you think?

24. Indonesia

needs replacements

Is that a house? Wow. Seriously, sunset is gold!

23. Bahamas

needs replacements

Presenting, the Bahamas. Flawless.

22. South Korea

needs replacements

Clap, clap, clap. Really… nice shot!

21. Vatican City

needs replacements

The Holy City, ladies and gentlemen. Such classic beauty I want to shed some tears.

20. Turkey

needs replacements

Say what? Gorgeous.

19. Jamaica

needs replacements

I think I just died. Did you just, too?

18. India

needs replacements

The view of the infamous Taj Mahal during sunset is beyond ordinary. Couldn’t get better.

17. Kuwait

needs replacements

Sunset in Kuwait is <3. That view… killer

16. Greece

needs replacements

This must be where the gods and goddesses chill out. Confirmed.

15. Poland

needs replacements

Who ever said Polish sunsets aren’t up the snuff? Lies, lies, lies!

14. Brazil

needs replacements

Somewhere in South America, there’s Brazil. And, somewhere in there, there’s this jaw-dropping sunset.

13. Iraq

needs replacements

What a meaningful sunset. A plane arrives in Iraq when the sun’s about to depart.

12. Vietnam

needs replacements

Let’s all go back to basics. Where there’s no so much fuss about technology.

11. Russia

needs replacements

It’s just that we’re all obsessed with love. And, that we all love sunset-laden, romantic looking rivers.

10. France

needs replacements

This makes me want to believe that it’s an honor to be living in this face of the planet. Agreed?

9. Tanzania

needs replacements

Oh my effin’ gracious lord! No, not impressed. Kidding.

8. Senegal

needs replacements

Mesmerizing. Is this even Earth still?

7. United States of America

needs replacements

This photo was taken somewhere in Kansas. Anyone would die to have a house overlooking this work of nature!

6. Papua New Guinea

needs replacements

The country’s name sounds a bit alien to many. It can never be denied, though–their sunsets are a beauty.

5. Sweden

needs replacements

Swedish lakes are all really dramatic (almost all of them). And, their sunsets, too.

4. South Africa

needs replacements

It’s official–I can’t breathe. Look at that.

3. Italy

needs replacements

What a classy and romantic setting! You wish you were the one who took the photo, don’t you?

2. China

needs replacements

Is that the Great Wall of China? Yes, it is. Just stunning.

1. Philippines

needs replacements

Now Watch This Video:

Don’t say that view of a small boat and the sunset doesn’t take your breath away (and doesn’t make you feel a bit emotional). And, how the waters reflect the skies above–perfection!

Selena Gomez Talks About Selenators & Refers to Justin Bieber?

Selena Gomez /Credit: by WENN.com

Selena Gomez is enjoying another personal high as she’s been unveiled as the new cover girl for the latest issue of American glossy fashion bible Vogue.

The singer graces the latest Vogue in her first cover for the American version of the magazine, opening up about the struggles she faced when it came to the transition of her music, her fans and how that affected a great deal of her mental health.

Selena Gomez/Credit: WENN.com

The stunning singer and actress discusses her relationship with her fans in great detail, and at one point during the interview with Vogue she reveals that not everyone in her inner circle has always been thrilled by that.

https://www.instagram.com/p/BRtE_xoAAoU/embed/captioned/?cr=1&v=7Rob Haskell, the interviewer, shared that Selena showed “infinite patience” during fan interactions, even complimenting the girls on their dresses and inviting them to sit with her for their photos. “I have a hard time saying no to kids,” Selena added, brushing right over the “somebody” she previously mentioned.

https://www.instagram.com/p/BRtGzF7APVs/embed/captioned/?cr=1&v=7 

100 years after 1917, Karl Marx lives and will probably live forever

MUCH of what Karl Marx wrote, the same prescient thoughts that were to guide and inspire the revolt against Tsarist Russia in February 1917— and climax with Lenin’s rise to power following the November triumph of the Bolsheviks—remain relevant today. No, not the withering of the state and the inexorable march of historical determinism to put in place a classless society.

The USSR imploded, remember, even before a rough draft of an efficient central planning could be written down and (excuse this non-Marxist term) pilot-tested in one of those ideal laboratory sites – the small Comintern member-countries.

Rather, it was his prescience to write about the irreconcilable conflicts between labor and capital and the struggles of the proletarian class that would forever demand for a fair share of their labor. And the many contradictions other than the economic, mostly social and cultural, that would be inherent in a society driven by the conflicts between the owners of capital and the provider of labor. More than ethnic and religious strife, it is economic angst and dislocation that drive most of the discontent and upheavals across the globe.

Today is witness to a brutal form of inequality as documented by Thomas Piketty, who wrote a book about that by taking off from Marx’s Das Kapital.

From the Industrial Revolution to the age of Apps, these conflicts have persisted like curses, either in benign or moribund forms and manifestations.

There was no parliamentary resolution to those contradictions. The way out was only one—an armed revolution to topple the exploiter class, according to Marx.

This year marks a milestone for Marx—the centenary of the first successful application of Marx thesis on the inevitable triumph of a proletariat-led revolt, then the worker’s party’s assumption to power. Russia in 1917 toppled the long reign of absolute monarchs, crushed the Revolutionary Government that was accommodating to milder forms of socialism, to usher in a reign of the Bolsheviks, “the dictatorship of the proletariat.”

Marxism saw its full fruition in Russia. It came in the form of a one-party state, central planning, the Red Army, the Politburo, the Pravda and all the organs of state control that were single-handedly ordered by Lenin in a rush of decree-making after the 1917 Revolution.

In Asia, Marxism saw its most successful application in China. Like Lenin, who bent Marxism into certain refinements that suited his own thesis on how to make that leap into the ultimate dream of a classless society, Mao’s own addition were so substantive that a third rail was eventually fixed on the original Marxism-Leninism.

Marxism evolved into Marxism-Leninism-Maoism after a prodigious effort of Mao to influence the original with an Asian context. Mao had a peasant army and a cadre of loyalists that were as intellectually predisposed as Trotsky (think of Zhou Enkai) without the rigidity and unbending nature of Trotsky.

How nimble were they, really. None of the original followers of Lenin, come to think of it, would have adroitly shifted course, such as what Deng did to modernize China and make making money an ironic ingredient of China’s version of modern communism.

The 21stcentury version of China’s communism is mostly a one-party state with central planning jettisoned, and with the third generation of the original 1949 leaders aiming for places at Harvard and Stanford.

The Philippine version of the Left gained ground while Mao was still toiling at the libraries to write down his big plan that would climax with the Long March. Crisanto Evangelista and Pedro Abad Santos merged their own groups, the printing press employee and the landowner coming to terms easily and without much leadership dispute, to form the Communist Party of the Philippines, with Evangelista as the leader.

The CPP had thousands in its peasant army before Mao could form his own and just like Mao’s army, they were active in the resistance movement during the war with Japan. It was all set to seize power from the political and economic elite at its peak strength. (Was it because of the ideological impurity of the likes of Ka Luis who lacked the bloodthirsty nature of Stalin?) How it squandered the opportunity to capture state power was mostly blamed on the US presence. But Vietnam did it, even with US intervention. And with the US at the apex of its military might.

Today, the Philippine Left is an amazing outlier, a revolutionary group still pushing for a Maoist version—that of a patiently carved encirclement of the seat of power from the countryside. The Narodnik underpinning of the Philippine version of the Left is still there, given perhaps the agrarian base of the areas influenced by the CPP.

The other amazing thing is this. It has survived in a global context that saw Maoist groups elsewhere being engulfed—for one reason or another—into Trotsky’s “dustbin of history.”

The Philippine Left is by no means a marginal group that the state can ignore. The Duterte administration (in a very candid and correct appraisal) sees it as the only force that can effectively oppose his administration aboveground and underground.

The pro-rich, elitist rule of Mr. Aquino has led to the opening up of more guerrilla fronts and influenced areas.

And Mr. Duterte now has to confront an energized Left. While his administration has been merrily demolishing its mainstream opposition (sino yung gusto ninyong susunod na ikulong?), it treads a careful ground with the Left.

In an age of the “internet of everything” and venture capital, the Philippine Left is still alive and may be still around come the February Revolution’s second centenary.

Mysterious Unknown Serial Killer

অজ্ঞাতনামা খুনি

এখন পর্যন্ত রাজধানীর দক্ষিণখানেই দেখা গেছে এই খুনিকে। ফর্সা, প্রায় পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি লম্বা, সুদর্শন এই যুবককে দেখলে ঘুণাক্ষরেও সন্দেহ হবে না সে একজন ক্রমিক খুনি। শিক্ষিত ও মার্জিত বাচনভঙ্গির এই যুবক শিকার হিসেবে বেছে নেয় মধ্যবয়সী ধনাঢ্য নারীদের। বাসা ভাড়া নেবার অজুহাতে সে তার শিকারের বাড়িতে আসে। গৃহকর্ত্রী তাকে ফ্ল্যাট দেখাতে নিয়ে গেলে সে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে তাদের হত্যা করে। তবে আশেপাশে লোকজন থাকলে সে কিছুই না করে সরে আসে। এখন পর্যন্ত তিনজনকে খুন ও দুজনকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করেছে সে। রুচিশীল পোশাক পরিহিত, কাঁধে ব্যাগ নেয়া এই যুবককে দেখে ঠাহর করা কঠিন যে সে খুনের মতো কাজও করতে পারে।

এই অজ্ঞাতনামা খুনি তার কাজ শুরু করে ২০১৬ সালের ২৪শে জুলাই থেকে। সেদিন দক্ষিণখানের উত্তর গাওয়াইর এর এক বাসায় ফ্ল্যাট ভাড়া নেবার উছিলায় হাজির হয় এই খুনি। গৃহকর্ত্রী শাহিদা বেগম (৫০) বাসা দেখাতে নিয়ে গেলে সে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে তাকে হত্যা করে। পরদিন অর্থাৎ ২৫শে জুলাই দক্ষিণখানের আশকোনা মেডিকেল রোডের ২৩৫ নং বাসার গৃহকর্ত্রী মাহিরা বেগমকে (৫০) কুপিয়ে জখম করে সে। মাহিরা বেগমের স্বামী সুলতান আহমেদ বাসায় সাবলেট ভাড়া দেবার জন্য নোটিশ টানান। বেলা সাড়ে ১১ টার সময় ঐ যুবক ৪র্থ তলায় উঠে এসে মাহিরা বেগমের সাথে ভাড়ার ব্যাপারে আলাপ করতে থাকে। এরপর ব্যাগ থেকে চাপাতি বের করে মাহিরা বেগমের মাথায় দুটি ও গলার পেছনে একটি কোপ দিয়ে পালিয়ে যায় এই খুনি। রক্তাক্ত ও সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

২১শে আগস্ট পূর্ব মোল্লারটেকে তার পরবর্তী শিকার হতে যাচ্ছিলেন সুরাইয়া আক্তার (৫২)। একই পদ্ধতিতে খুন হন তেঁতুলতলা ইয়াসিন রোডের এই নারী। স্থানীয়দের তথ্যমতে, নিহত এই নারী বাড়ির দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাটে পরিবারসহ থাকতেন। বাড়ীটির ৩য় তলায় ফ্ল্যাট খালি ছিল এবং সেটি দেখাতে গিয়েই এই নারী খুন হন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঐ ফ্ল্যাটেই তার রক্তাক্ত নিথর দেহ পাওয়া যায়।

অতঃপর ঐ মাসের ৩১ তারিখ সে উত্তরার দক্ষিণ আজমপুর এলাকায় খুঁজে নেয় পরবর্তী শিকার। আজমপুরের মুন্সি মার্কেট এলাকার ৮১/৩৯ নম্বর বাড়ির কাজী মজিবুর রহমানের স্ত্রী জেবুন্নেসা চৌধুরীকে (৫৬) কুপিয়ে আহত করে। তিনি বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আঘাতের জন্য তার দুটো চোখই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এক্ষেত্রেও বাড়ি ভাড়া নেবার অজুহাতের আশ্রয় নেয় এই খুনি। চতুর্থ তলায় ফ্ল্যাট দেখাতে গেলে তার উপর আক্রমণ হয় বলে জানা গেছে। আহতের মতে কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে কোপানো শুরু হয়। তার দেয়া বর্ণনার সাথে অন্যদের দেয়া খুনির চেহারার বর্ণনা হুবহু মিলে যায়। ঘটনাস্থল থেকে একটি স্কুল ব্যাগ এবং লোহার চাপাতি জব্দ করে পুলিশ।

এই ধূর্ত খুনির এখন পর্যন্ত সর্বশেষ শিকার দক্ষিণখানের আশকোনার গাওয়াইরের দক্ষিণ পাড়ার ৭১৫ নম্বর বাড়ির ওয়াহিদা আক্তার সীমা (৪৪)। বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ নীল-কালো শার্ট ও কালো প্যান্ট পরিহিত এক যুবক বাড়ির নিচে আসে। যুবকের হাতে ব্যাগ ছিল। নিহতের মেয়ে শারমিন আক্তার (২২) ঐ ব্যক্তির কাছে আসার কারণ জানতে চাইলে সে বাসা ভাড়ার ব্যাপারে কথা বলবে বলে জানায়। ব্যাচেলর ভাড়া দেয়া হয় না বলার পর পরিবার নিয়ে থাকবে বলে জানায় ঐ ব্যক্তি। তিনতলা থেকে চাবি নিচে ফেলে ঐ যুবককে কাঁচিগেট খুলে উপরে আসতে বলেন তিনি। এরপর ওয়াহিদা তাকে ষষ্ঠতলায় ফ্ল্যাট দেখানোর জন্য নিয়ে যান। এর ১৫ মিনিট পর শারমিন আক্তার সেখানে গেলে রক্তে ভেসে যাওয়া মেঝেতে মায়ের মৃতদেহ দেখতে পান।

খুনির অন্য শিকারের মতো এখানেও গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। মেঝেতে পানি পাওয়া যাওয়ায় ধারণা করা হয় খুনের পর নিজের শরীর থেকে রক্ত মুছতে ও জুতোতে রক্তের দাগ লাগা ও তার ছাপ রুখতে সে পানি ব্যবহার করে। এই ঘটনার আগেরদিনও পাশের একটি বাড়িতে গিয়েছিল এই খুনি। কিন্তু তাকে যে ফ্ল্যাটটি দেখাতে নিয়ে যাওয়া হয় সেটির আগের ভাড়াটিয়া তখনও না চলে যাওয়ায় সে তার উদ্দেশ্য হাসিলে ব্যর্থ হয় এবং ফ্ল্যাট না দেখেই সেখান থেকে চলে যায়। যাবার আগে বলে যায়- সে যে কাজের জন্য এসেছিল তার লাভ হয়নি। কি কাজ জিজ্ঞাসা করা হলে সে “কোনো কাজ হলো না” বলে চলে যায়। পার্শ্ববর্তী বিল্ডিঙয়ের সিসিটিভি ফুটেজে তার গমনদৃশ্য দেখা যায়, যদিও তাতে চেহারা অস্পষ্ট।

সিসিটিভি ফুটেজে ধারণকৃত খুনির অস্পষ্ট প্রতিকৃতি

র‍্যাব-এর আঁকিয়েদের দিয়ে তার একটি চিত্র প্রস্তুত করা হলেও সে এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে গেছে। অত্যন্ত ধূর্ত এই খুনি বাসা ভাড়ার অজুহাতে নানা বাসায় হাজির হলেও কখনোই ভাড়ার জন্য দেয়া ফোন নম্বরে ফোন করে না। সে চাপাতি চালানোতে বিশেষভাবে দক্ষ। মাঝবয়সী সম্পদশালী নারীদের উপর তার কোনো কারণে ক্ষোভ রয়েছে। এসব ঘটনার কারণে দরজায় বেল বাজলেই আঁতকে উঠছে দক্ষিণখানবাসী।

Phillip Hughes

ফিলিপ হিউজেস: যাকে আউট করতে পারবে না আর কোনো বোলার

মাইকেল ক্লার্কের ইনজুরি কারণে ভারতের বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজে ফিলিপ হিউজেসের খেলা প্রায় নিশ্চিত। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সীমিত ওভারের ক্রিকেটেও রানের ধারায় ছিলেন, তাই তার ভারতের বিপক্ষে টেস্ট দলে ফিরে আসা শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার তখন।

আবুধাবিতে ফটোগ্রাফি অফ দ্য ইয়ারে জায়গা করে নিয়েছিল ফিলিপ হিউজেসের ছবিটি

শেফিল্ড-শিল্ডের ম্যাচে নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে অসাধারণ ব্যাট করছিলেন হিউজেস। মধ্যাহ্ন বিরতির পর যখন ব্যাট করছেন তখন তার নামের পাশে অপরাজিত ৬৩ রান লেখা। এমন সময় শেন অ্যাবোটের হঠাৎ লাফিয়ে উঠা বলে হুক করতে গিয়ে ব্যাটে-বলে ঠিকমতো সংযোগ করতে পারলেন না হিউজেস। মাথায় হেলমেট থাকা সত্ত্বেও বল এসে সোজা আঘাত হানলো তার কানের একটু নিচে ঘাড়ের অংশটায়। এরপর হাঁটুর উপর ভর দিয়ে কয়েক সেকেন্ড দাঁড়িয়ে ছিলেন। বিপক্ষ দলের সবাই যখন তার দিকে ছুটে আসছে ততক্ষণে মাটিতে লুটিয়ে পড়লেন হিউজেস। সাথে সাথে অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার কারণে তাকে নিয়ে যাওয়া হল সিডনির সেন্ট ভিনসেন্ট হসপিটালে।

হুক করতে গিয়ে বলটি হেলমেট মিস করে ঘাড়ে লাগার পর পরে যান হিউজেস

সেখানে দুইদিন কোমায় থাকার পর নিজের ২৬তম জন্মদিনের দু’দিন আগে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন ফিলিপ হিউজেস। ক্রিকেট বিশ্বকে থমকে দিয়ে অকালেই ঝড়ে পড়েন তরুণ এই ক্রিকেটার। ভারতের বিপক্ষে মাইকেল ক্লার্কের জায়গায় তার খেলার কথার ছিল। সেই মাইকেল ক্লার্কই তার মৃত্যুর পর তার বদলে বক্তব্য রাখেন অশ্রুসিক্ত চোখে।

বোলার শেন অ্যাবোটের স্বাভাবিক হতে অনেকদিন সময় লেগেছিল, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা মিচেল জনসনও খেই হারিয়ে ফেললেন। পুরো ক্রিকেট বিশ্বে শোকের কালোছায়া এসে ঢেকে দিয়েছিল। সাউথ অস্ট্রেলিয়া বনাম নিউ সাউথ ওয়েলসের ম্যাচটি ঐখানেই সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। শেফিল্ড-শিল্ডের চলতি দুটি ম্যাচও দিনশেষে সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। ফিলিপ হিউজেসের মৃত্যুতে পাকিস্তান বনাম নিউজিল্যান্ডের টেস্টের তৃতীয় দিন স্থগিত করা হয়। পরদিন খেলতে নেমে নিউজিল্যান্ডের বোলাররা কোনো ব্যাটসম্যানকে বাউন্স বল দেননি। এমনকি উইকেট শিকারের পর উদযাপনও করেনি ব্ল্যাক ক্যাপসরা।

ফিলিপ হিউজেসের মৃত্যুতে নীরবতা পালন করছেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা

পিছিয়ে দেয়া হয়েছিলো ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া সিরিজও। সিরিজটি যখন অনুষ্ঠিত হয় তখনো ক্রিকেটারদের স্মরণে ছিলো ফিলিপ হিউজেস। স্টিভ স্মিথ, মাইকেল ক্লার্ক এবং ডেভিড ওয়ার্নাররা যখনই ব্যাট করার সময় ৬৩ রানে আসতেন, তখন স্মরণ করতেন হিউজেসকে।

ফিলিপ হিউজেসের ক্রিকেট ক্যারিয়ার অন্য আট-দশজন ক্রিকেটারের মতো নয়। নিউ সাউথ ওয়েলসের ম্যাকভিলেতে এক গরীব কলা চাষির ঘরে জন্ম হিউজেসের। ক্রিকেটার হতে না পারলে হয়তো ঐ পেশাটাই বেছে নিতে হতো তাকে। কিন্তু হিউজেস মেতে থাকতেন ব্যাট বল নিয়ে। মূলত ব্যাটিংটাই তার পছন্দের ছিল, সময় পেলেই ব্যাট হাতে নেমে যেতেন নেট প্র্যাকটিসে।

বাবার সাথে ফিলিপ হিউজেস

ক্রিকেটে তার হাতেখড়ি একেবারে ছোট বয়সেই। মাত্র ১২ বছর বয়সে ম্যাকভিল ক্রিকেট ক্লাবে শতক হাঁকান। এরপর ১৭ বছর বয়সে ম্যাকভিল ছেড়ে সিডনিতে পাড়ি জমান ভালো কিছু করার প্রত্যয়ে। ২০০৬-০৭ মৌসুমে ওয়েস্টার্ন সাবার্বস ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে খেলতে সিডনি যান। সেখানে সিডনি গ্রেড ক্রিকেটে খেলেন হিউজেস। অভিষেক ম্যাচেই খেলেন অপরাজিত ১৪১ রানের দুর্দান্ত ইনিংস।

খুব দ্রুত উন্নতি করতে থাকা হিউজেস ২০০৮ সালে অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধিত্ব করেন। এর আগেই প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে অভিষেক ঘটেছিল তার। মাত্র ১৮ বৎসর ৩৫৫ দিনে নিউ সাউথ ওয়েলসের সিনিয়র টিমে জায়গা করে নেন তিনি। মাইকেল ক্লার্কের পর সবচেয়ে কম বয়সী ক্রিকেটার হিসাবে নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে খেলেন হিউজেস। নিজের প্রথম মৌসুমেই ৬২.১১ ব্যাটিং গড়ে করেন ৫৫৯ রান।

ধারাবাহিক সাফল্যের কারণে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে মিডলসেক্সের হয়ে খেলার জন্য ডাক পান হিউজেস। সেখানে গিয়ে মাত্র ৩ ম্যাচে ১৪৩.৫০ ব্যাটিং গড়ে করেন ৫৭৪ রান। ঐ মৌসুমে সারির বিপক্ষে খেলেন ১৯৫ রানের দুর্দান্ত ইনিংস যেটা তাকে আলোচনায় নিয়ে আসে। অল্পদিনেই নির্বাচকদের নজর কাড়েন ফিলিপ হিউজেস।

ম্যাথিউ হেইডেনের অবসরের কারণে ব্যাগি গ্রিন ক্যাপ পেয়ে যান মাত্র ২০ বছর বয়সেই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অভিষেক ইনিংসে ডেইল স্টেইনের বলে আউট হয়ে ফিরেন কোনো রান না করেই। কিন্তু “মেঘ দেখে কেউ করিসনে ভয়, আড়ালে তার সূর্য হাসে। হারা শশীর হারা হাসি অন্ধকারেই ফিরে আসে।”সত্যেন্দ্রনাথের লেখা এই দুটো লাইন যেন ফিলিপ হিউজেসের জন্যই। প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে ফিরে যাওয়ার পর তিনি খেলেন ৭৫ রানের অসাধারণ দ্বিতীয় ইনিংস। ২০০৯ সালের ৬ই মার্চ অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টের জন্য তুলে রেখেছিলেন আসল চমক। ডেইল স্টেইন, মরনে মরকেল, মাখায়া এনটিনি এবং জ্যাক ক্যালিসদের নিয়ে গড়া দুর্ধর্ষ প্রোটিয়া বোলিং লাইনআপকে নাস্তানাবুদ করে ডারবান টেস্টের প্রথম ইনিংসে করেন ১৫১ বলে ১১৫ রান। যার মধ্যে ৮৮ রান এসেছিল শুধুমাত্র বাউন্ডারি থেকেই।

ডারবানে দ্বিতীয় ইনিংসে শতক হাঁকানোর পর উদযাপন করছেন ফিলিপ হিউজেস

১০ই মার্চে ডারবান টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসেও শতক হাঁকান ফিলিপ হিউজেস। এইবার কিছুটা রক্ষণাত্মক ভঙ্গীতে খেলে করেন ১৬০ রান। এতে করেই রেকর্ডবুকে নিজের নাম তুলে নেন হিউজেস। সবচেয়ে কমবয়সী ব্যাটসম্যান হিসাবে টেস্ট ম্যাচের দুই ইনিংসেই শতক হাঁকান এই তরুণ ক্রিকেটার। মাত্র ২০ বৎসর ৯৮ দিনে এই রেকর্ড গড়েন তিনি। এর আগে হ্যাডলি ১৯৩০ সালে ২০ বৎসর ২৬৭ দিনে দুই ইনিংসেই শতক হাঁকিয়েছিলেন।

ফিলিপ হিউজেস রেকর্ড বুকে নিজের নাম লেখাতে পছন্দ করেন বলেই হয়তো অভিষেক ম্যাচেই নিজের নামের পাশে তিন সংখ্যার রান যোগ করেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচে খেলেছিলেন ১১২ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংস। প্রথম এবং একমাত্র অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার হিসাবে ওয়ানডে অভিষেকে শতক হাঁকান হিউজেস। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঐ সিরিজের ৫ম ম্যাচেও খেলেন ১৩৮ রানের দারুণ এক ইনিংস।

অভিষেক ওয়ানডেতে শতক হাঁকানোর পর উদযাপন করছেন ফিলিপ হিউজেস

২০১৪ সালের নভেম্বরে যখন চলে যান না ফেরার দেশে, তার কয়েক মাস আগেও নতুন রেকর্ডের জন্ম দিয়েছেন হিউজেস। লিস্ট-এ ক্রিকেটে প্রথম অজি ব্যাটসম্যান হিসেবে শতক হাঁকিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলের বিপক্ষে। ১৫১ বলে অপরাজিত ২০২ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। ক্রিকেটকে দেওয়ার মতো ফিলিপ হিউজেসের ভাণ্ডারে নিশ্চয়ই আরো অনেক কিছুই ছিল। কিন্তু মৃত্যুর কাছে হার মানতে হয় সদাহাস্য ফিলিপ জোয়েল হিউজেসের।

বিদায়ের আগে হিউজেস অজিদের হয়ে ২৬টি টেস্টে ৩২.৬৫ ব্যাটিং গড়ে করেন ১,৫৩৫ রান। ৩টি শতক এবং ৭টি অর্ধশত রানের ইনিংস ছিল তার ক্যারিয়ারে।

হিউজেস ২৫টি ওয়ানডে ম্যাচে ৩৫.৯১ ব্যাটিং গড়ে ২টি শতক এবং দ্বিগুণ অর্ধশতকের সাহায্যে করেন ৮২৬ রান। বয়স ছাব্বিশের কোঠা স্পর্শ না করতে পারলেও হিউজেসের প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে শতকের সংখ্যা ঠিক ২৬টি! প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ১১৪ ম্যাচে ৪৬.৫১ ব্যাটিং গড়ে তার রান ৯,০২৩, রয়েছে ২৬টি শতক এবং ৪৬টি অর্ধশতক।

ফিলিপ হিউজেস, তোমায় ভোলেনি ক্রিকেটপ্রেমীরা

স্বল্প জীবনের ক্ষুদ্র ক্যারিয়ারের সাফল্যে ‘লিটল ডন’ নামেও আখ্যা পেয়েছিলেন হিউজেস। ৮ বছর আগে তার অভিষেক সিরিজ শেষে গণমাধ্যমে বলাবলি হচ্ছিল, অস্ট্রেলিয়া পরবর্তী ১০ বছরের জন্য চিন্তামুক্ত। ওপেনিংয়ের দায়িত্বটা নিশ্চিন্তে সঁপে দেয়া যায় হিউজেসের কাঁধে। কিন্তু কে জানত, মাত্র বছর পাঁচেক পরেই তাদেরকেই প্রকাশ করতে হবে হিউজেসের শেষযাত্রার খবর।

ফিলিপ হিউজেস যুগ যুগ ধরে ৬৩ রানে অপরাজিত থাকবেন, যাকে আউট করতে পারবেন না আর কোনো বোলার। কাকতালীয় হলেও সত্য, ফিলিপ হিউজেসের প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ২৪৩ রানের ইনিংসটিতে তিনি ছিলেন অপরাজিত। লিস্ট-এ তে ২০২ রানের ইনিংসটিতেও ছিলেন অপরাজিত। এমনকি টি-টুয়েন্টিতেও ছিল তার ৮৭ রানের অপরাজিত ইনিংস।

শুধুমাত্র জীবনের কাছেই হার মেনেছিলেন ফিলিপ জোয়েল হিউজেস।

তথ্যসূত্র

en.wikipedia.org/wiki/Phillip_Hughes

বখতিয়ার খিলজীর বাংলা বিজয়

কয়েক হাজার অক্ষরের বিন্যাসে লেখা ইতিহাসের বইটা যতটা নীরস লাগে, মূল ইতিহাস কিন্তু ততোটা রসহীন হয় না। প্রতিটি ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে থাকে অজস্র উত্থান-পতন, রক্তপাত, দুর্বিষহ বাস্তবতা। “বখতিয়ার খিলজী ১২০৪ সালে মাত্র ১৭ জন অশ্বারোহী সেনা নিয়ে নদীয়ার রাজা লক্ষণ সেনকে পরাজিত করে বাংলা জয় করেন”- ইতিহাসের বইয়ের এই লাইনটি নিশ্চয় সবার ঝাড়া মুখস্ত রয়েছে? যদিও এর আগের বা পরের কোনো কিছুই আমাদের ঠিকমতো জানা নেই। চলুন জেনে নেয়া যাক সেই বখতিয়ার খিলজী আর তার দুর্ধর্ষ অভিযানের কথা।

খ্রিষ্টীয় ত্রয়োদশ শতকের গোড়ার কথা। তখন বাংলায় রাজত্ব করতেন সেন বংশের রাজা লক্ষণ সেন। তিনি নদীয়ায় বাস করতেন। একদিন তার দরবারের পন্ডিতরা তাকে বললেন যে, তাদের প্রাচীন গ্রন্থে লিখিত আছে, বাংলা তুর্কীদের দখলে যাবে। ততদিনে সমগ্র উত্তর ভারত তুর্কীরা অধিকার করেছে এবং বখতিয়ার খিলজী বিহার জয় করেছেন।

রাজা ব্রাহ্মণ পন্ডিতদের কাছে জানতে চাইলেন প্রাচীন গ্রন্থে বাংলা আক্রমণকারীর দেহাবয়ব সম্পর্কে কোনো ইঙ্গিত আছে কিনা। জবাবে পন্ডিতগণ জানান, যে তুর্কী বাংলা জয় করবেন, তিনি আকৃতিতে খাটো এবং দেখতে কুৎসিত হবেন, তার হাতগুলো হাঁটু পর্যন্ত লম্বা হবে। বিশ্বস্ত লোক পাঠিয়ে রাজা লক্ষণ সেন নিশ্চিত হন যে, বিহারজয়ী বখতিয়ার খিলজীর সাথে উক্ত বিবরণগুলি মিলে যায়। তুর্কী আক্রমণ এক প্রকার অত্যাসন্ন বুঝেও লক্ষণ সেন তা আমলে নেন নি। ব্রাহ্মণ পন্ডিতগণ রাজার অনুমতি ছাড়াই নদীয়া ছেড়ে চলে যান।

ঐতিহাসিক মিনহাজ-ই-সিরাজ তার ‘তবকাত-ই-নাসিরি’ গ্রন্থে উপরোক্ত তথ্যটি প্রকাশ করেন। ঘটনাটি সত্যিই ঘটেছিলো কিনা তা জোর দিয়ে বলার উপায় নেই। কিন্তু তার অনতিকাল পরেই বখতিয়ার খিলজী নদীয়া আক্রমণ করেন এবং বাংলায় মুসলিম শাসন সাম্রাজ্য স্থাপন করেন।

উপমহাদেশে মুসলিম সাম্রাজ্য বিস্তারের তিনটি স্তর দেখা যায়। প্রথমত, আরবগণ মুহাম্মদ বিন কাসিমের নেতৃত্বে ৭১২ খ্রিস্টাব্দে সিন্ধু ও মুলতান জয় করে। দ্বিতীয় পর্যায়ে তুর্কী সুলতান আমীর সবুক্তগীন ও তার পুত্র সুলতান মাহমুদ দশম শতাব্দীর শেষ দিকে বারবার উপমহাদেশ আক্রমণ করে লাহোর পরিবেষ্টিত এলাকা স্বীয় গজনী রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেন। তৃতীয় পর্যায়েও তুর্কীরাই আক্রমণ পরিচালনা করে। এইবার নেতৃত্ব দেন মুহাম্মদ ঘুরী। এবারের আক্রমণে তুর্কীরা দিল্লীকে কেন্দ্র করে উপমহাদেশে স্থায়ী মুসলিম সাম্যাজ্য প্রতিষ্ঠা করে। বখতিয়ার খিলজীর বাংলা আক্রমণ এই তৃতীয় পর্যায়ের আক্রমণেরই অংশ।

ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী আফগানিস্তানের গরমশির এলাকার অধিবাসী ছিলেন। তিনি তুর্কীদের খিলজী সম্প্রদায়ভুক্ত ছিলেন। তার বাল্যজীবন সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায় না। তবে মনে করা হয় যে, তিনি দারিদ্রের নিষ্পেষণে স্বদেশ পরিত্যাগ করে জীবিকার সন্ধানে বের হন। মুহাম্মদ ঘুরী তখন ভারতীয় উপমহাদেশে অভিযান চালাচ্ছিলেন। বখতিয়ার, ঘুরীর সৈন্যদলে চাকুরীপ্রার্থী হয়ে ব্যর্থ হন। তখন নিয়ম ছিলো, প্রত্যেক সৈন্যকে নিজ ঘোড়া ও যুদ্ধাস্ত্রের ব্যবস্থা নিজেকেই করতে হতো। সামর্থ্যের অভাবে বখতিয়ার ঘোড়া বা ঢাল-তলোয়ার কিছুই যোগাড় করতে পারেননি। তাছাড়া খাটো দেহ, লম্বা হাত ও কুৎসিত চেহারার বখতিয়ার খিলজী সেনাধক্ষ্যের দৃষ্টিও আকর্ষণ করতে পারেননি।

গজনীতে ব্যর্থ হয়ে বখতিয়ার দিল্লীর সম্রাট কুতুবউদ্দিন আইবেকের কাছে আসেন এবং সেখানেও ব্যর্থ হন। অতঃপর বখতিয়ার পূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে বদাউনে গিয়ে পৌঁছেন। বদাউনের শাসনকর্তা মালিক হিজবর-উদ-দীন তাকে নগদ বেতনে চাকুরীতে রাখেন, তবে এমন চাকুরীতে বখতিয়ার সন্তুষ্ট ছিলেন না। কিছুদিন কাজ করার পর তিনি অযোধ্যায় চলে যান। অযোধ্যার শাসক হুসাম-উদ-দীন বখতিয়ারের প্রতিভা অনুধাবন করেন এবং তাকে ভিউলী ও ভগত নামে দু’টি পরগনার জায়গীর প্রদান করে মুসলিম রাজ্যের পূর্বসীমান্তে সীমান্তরক্ষীর কাজে নিযুক্ত করেন। এখানে বখতিয়ার তার ভবিষ্যৎ উন্নতির সম্ভাবনা দেখতে পান।

বখতিয়ারের জায়গীর সীমান্তে অবস্থিত হওয়ায় তিনি পার্শ্ববর্তী হিন্দু রাজ্যগুলির সংস্পর্শে আসেন এবং স্বীয় রাজ্য বিস্তারের পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। পার্শ্ববর্তী হিন্দু রাজ্যগুলিতে পূর্বে থেকেই তুর্কী আক্রমণের আতঙ্ক লেগে ছিলো। তার উপরে পারষ্পারিক অন্তর্বিরোধ লেগে থাকাতে সংঘবদ্ধ হওয়া তাদের জন্য সম্ভব ছিল না। বখতিয়ার খিলজীর জন্যে এটা ছিল উপযুক্ত সুযোগ। তিনি কিছু সৈন্য সংগ্রহ করে এক এক করে হিন্দু রাজ্য আক্রমণ ও লুট করতে থাকেন। এই সময় ঠিক রাজ্য বিস্তার করা তার উদ্দেশ্য ছিল না, বরং ধন-সম্পদ হস্তগত করে একটি বিরাট সৈন্যবাহিনী গঠন করে বড় একটা কিছু করাই তার পরিকল্পনা ছিল। ধীরে ধীরে তার নাম ছড়িয়ে পড়তে শুরু করলে চারিদিক থেকে ভাগ্যান্বেষী মুসলিমরা, বিশেষ করে বখতিয়ারের স্বীয় খিলজী সম্প্রদায়ভুক্ত লোকজন এসে তার সাথে যোগ দিতে থাকে।

এইভাবে অগ্রসর হবার সময় একদিন তিনি প্রাচীরবেষ্টিত দুর্গের ন্যায় একটি স্থানে এসে উপস্থিত হন। সেখানেও স্বভাবসুলভ চড়াও হয়ে তিনি এর বহু অধিবাসী হত্যা করেন এবং কোনো বাধা ছাড়াই জায়গাটি দখল করে নেন। সেখানকার অধিবাসিরা সকলেই ছিল মুন্ডিত মস্তক, এরা ছিল বৌদ্ধ ভিক্ষু এবং স্থানটি ছিল বই-পুস্তকে পরিপূর্ণ। জিজ্ঞাসাবাদ করে তিনি জানতে পারেন সেটি কোনো দুর্গ নয়, বৌদ্ধবিহার। বিহারটির নাম ওদন্তপুরী বিহার। ঐ সময় থেকে মুসলিমরা জায়গাটির নাম দিলেন বিহার বা বিহার শরীফ। জায়গাটি সেই নামেই এখনও পরিচিত। এভাবেই বিহার জয় করে নেন বখতিয়ার খিলজী। বিহারে এখনও বখতিয়ারপুর নামে একটি জায়গা আছে। এছাড়া এই লাগামহীন বিজয়ের পথে বখতিয়ার ঐতিহাসিক নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ও ধ্বংস করেন।

এর পরের বছর আরও বিপুল সংখ্যক সৈন্য নিয়ে বখতিয়ার নদীয়া আক্রমণ করেন। তিনি এতোই ক্ষিপ্রতার সাথে ঘোড়া চালনা করেন যে, তার সাথে মাত্র ১৮ জন সেনা আসতে পেরেছিলো। আমাদের দেশে প্রবাদ আছে যে, ১৭ জন অশ্বারোহী বাংলা জয় করেন। কথাটি সম্পূর্ণ সঠিক নয়। ঐতিহাসিক মিনহাজ সুস্পষ্টভাবে বলেন, বখতিয়ার খিলজী ১৮ জন অশ্বারোহী নিয়ে নদীয়া পৌঁছেন এবং তার মূল বাহিনী পেছনে আসছিল।

রাজা লক্ষণ সেনের রাজধানী ছিল ঢাকার বিক্রমপুরে। তিনি বৃদ্ধ বয়সে গঙ্গাপাড়ের পবিত্র তীর্থস্থান নদীয়ায় বাস করছিলেন। তিনি একজন সাহসী যোদ্ধা এবং সুশাসক ছিলেন। নিজ রাজ্য রক্ষার কোনো পূর্ব প্রস্তুতি তিনি নেন নি এমনটা ধরা যায় না। ঐতিহাসিকগণ মনে করেন, তিনি রাজ্যের মূল প্রবেশপথ তেলিয়াগড় গিরিপথে প্রহরার ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু সুকৌশলী বখতিয়ার খিলজী সেই পথে না গিয়ে দক্ষিণ দিকের জঙ্গলাকীর্ণ এলাকা ঝাড়খন্ডের মধ্যে দিয়ে অগ্রসর হন।

তিনি তার বাহিনীকে ছোট ছোট দলে ভাগ করেন এবং নিজে এরকম একটি দলের অগ্রভাগে ছিলেন। ফলে যখন তিনি নদীয়া পৌঁছেন, কেউ ভাবতেও পারেননি যে তুর্কী বীর বখতিয়ার খিলজী বাংলা জয় করতে এসেছেন। সবাই তাকে সাধারণ ঘোড়া ব্যবসায়ী ধরে নেয়। খিলজী সোজা রাজা লক্ষণ সেনের প্রাসাদদ্বারে উপস্থিত হন এবং দ্বাররক্ষীদের হত্যা করেন। রাজা তখন মধ্যাহ্নভোজে লিপ্ত ছিলেন। খবর শুনে তিনি নগ্নপদে প্রাসাদের পশ্চাৎদ্বার দিয়ে পলায়ন করেন এবং বিক্রমপুরে গিয়ে আশ্রয় গ্রহণ করেন।

বখতিয়ার খিলজী ৩ দিন যাবৎ নদীয়া লুটপাট করেন। লক্ষণ সেনের বিপুল ধন-সম্পদ, ভৃত্যবর্গ ও অনেক হস্তী তার হস্তগত হয়। প্রায় বিনা যুদ্ধেই বখতিয়ার নদীয়া জয় করে নেন। মনে রাখতে হবে, তিনি সমগ্র বাংলা জয় করেননি, বাংলার একটি অংশ জয় করেছিলেন মাত্র। তিনি নতুন জয় করা রাজ্যের নাম রাখেন ‘লখনৌতি’।

নবপ্রতিষ্ঠিত রাজ্যে তিনি সুশাসনের ব্যবস্থা করেন। তার সাথে অভিযানে সময় এবং পরবর্তীতে যেসব মুসলিম সেখানে বসবাসের জন্য আসেন, তাদের জন্য তিনি মসজিদ, মাদ্রাসা ও খানকাহ নির্মাণ করেন। তিনি জানতেন, শুধু সামরিক শক্তির উপরেই একটি রাজ্যের প্রতিরক্ষা নির্ভর করে না, পরিপূর্ণ শান্তির জন্য চাই অভ্যন্তরীন শৃঙ্খলা। আর তাই তার প্রতিষ্ঠিত মুসলিম রাজ্যের স্থায়ীত্ব বিধানে তিনি সুষ্ঠু মুসলিম সমাজ তৈরির প্রয়াস নেন।

হিন্দু ও বৌদ্ধধর্মাবলম্বীদের কাছে বখতিয়ার খিলজী শুধুই একজন খুনী, লুটেরার নাম। তবে এটাও ঠিক, ইতিহাসের একটি অংশের ধ্বংস তার হাতে এবং আরেকটি অংশের সৃষ্টি তার হাতে। তার আমলে ভারতবর্ষে বিপুল পরিমাণ মানুষ ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হয়। বাংলাদেশের খ্যাতিমান কবি আল মাহমুদ তার ‘বখতিয়ারের ঘোড়া’ কাব্যগ্রন্থে বখতিয়ার খিলজীকে একজন প্রশংসনীয় বীর হিসেবে চিত্রায়িত করেছেন। যদিও এই দুর্ধর্ষ বীরের পরিসমাপ্তি সুখকর হয়নি। বাংলা বিজয়ের অনতিকাল পরে তিনি তিব্বত আক্রমনে বের হন। এই অভিযানে তিনি শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হন এবং তার বিপুল সংখ্যক সেনা ধ্বংস হয়ে যায়। মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত অবস্থায় ১২০৬ সালে বখতিয়ার খিলজী ইহলোক ত্যাগ করেন।

তথ্যসূত্র

১) বাংলার ইতিহাসঃ সুলতানী আমল- আবদুল করিম

২) en.wikipedia.org/wiki/Muhammad_bin_Bakhtiyar_Khilji

৩) thetinyman.in/2012/09/bakhtiyar-khiljis-conquest-of-bengal.html

Spammers Just Leaked 1.4bn Email Addresses

Is Your Account Safe?

One of the largest spam operators got exposed when the email database of around 1.4bn got leaked in front of the whole world. 

An email marketing company River City Media was exposed on Friday when Chris Vickery from MacKeeper revealed this big security flaw. 

 

River City Media 

 
Spammers Just Leaked 1.4bn Email Addresses
 

River City Media was having a database of around 1.4bn email addresses and was sending billions of messages on daily basis. The leak of this huge database has brought a new threat to people whose email addresses were registered. 

According to the researchers at MacKeeper

 
Spammers Just Leaked 1.4bn Email Addresses
 

The leaked database was exposed from months along with the companies log and chat. He also added, “The situation presents a tangible threat to online privacy and security as it involves a database of 1.4bn email accounts combined with real names, user IP addresses, and often physical address.”  

Tweet from Chris Vickery from MacKeeper

Chris posted a screenshot of the database backup which was created somewhere in January 2017, which makes his statement more authentic. He also posted a teaser of the leak he later revealed on Twitter, in which it was clearly stated that the database of approximately 1.4Bn email address. 

হিটলারকে হত্যাচেষ্টার রোমহর্ষক সব কাহিনী

Ahmed Estiak Bidhan

Contributor

হিটলার! সম্ভবত পৃথিবীর ইতিহাসের সবচেয়ে ঘৃণিত ব্যক্তিদের মাঝে একজন। যদিও জার্মানদের কাছে এখনও হয়ত বেশ জনপ্রিয় এই মানুষটি। কারণ তিনিই ছিলেন তাদের প্রিয় ফিউরার।

১৯৩৮ সাল চলে তখন। দেশের বেকারত্বের সমস্যা প্রায় মিটিয়ে ফেলেছেন হিটলার। এবার সামরিক শক্তি আর যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতিতে নজর দিলেন তিনি। দেশকে উন্নতির চরম শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন। ধীরে ধীরে দেশের মানুষের আস্থার প্রতীক হয়ে উঠলেন তিনি।

adolf_hitler

হিটলারের অভাবনীয় জনপ্রিয়তার কারণে নাৎসিবিরোধী উগ্র গোষ্ঠীগুলোর অবস্থা তখন সঙ্গীন। এমনই অবস্থার মধ্য দিয়ে জার্মানি ধীরে ধীরে এগিয়ে গেল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকে। সে গল্প না হয় আরেকদিন শোনা যাবে। আজ আমরা শুনব দুনিয়ার চোখে ভিলেন, জার্মানদের চোখে তাদের প্রিয় ফিউরার হিটলারকে হত্যার কয়েকটি ব্যররথ চেষ্টার রোমহর্ষক কাহিনী। চলুন তবে শুরু করা যাক।

১৯২১: মিউনিখ বিয়ার হলের দাঙ্গা

হিটলারকে হত্যার ১ম চেষ্টাটি ছিল ২য় বিশ্বযুদ্ধের প্রায় ২০ বছর আগের। ১৯২১ সাল। হিটলার তখনও তরুণ। মিউনিখের বিয়ার হলে হিটলার বক্তৃতা রাখলেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন নতুন গড়া নাজি পার্টির কয়েকজন সদস্য। এছাড়াও সোস্যাল ডেমোক্রেটিক, কম্যুনিস্ট এবং আরো কিছু রাজনৈতিকভাবে বিরোধী ব্যক্তিরাও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। হিটলারের আগুনের গোলার মতো বক্তৃতা তাদেরকে আঘাত করল। তারা তার এমন সাহসী বক্তৃতায় পাগল প্রায় হয়ে গেল। চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি শুরু হয়ে গেল। এরই মাঝে একদল বন্দুকধারী তাদের পিস্তল থেকে মঞ্চের দিকে বেশ কয়েকবার হিটলারের দিকে গুলি চালালো। কিন্তু হিটলারের কোনো রকম ক্ষতি হলো না।

_82089004_hitlerbeerhall

এমন পরিস্থিতির মাঝেই হিটলার আরো ২০ মিনিট তার আগুনঝড়া বক্তৃতা চালিয়ে গেলেন। তিনি তার বক্তৃতা চালিয়ে গেলেন যতক্ষণ না পুলিশ এসে সম্পূর্ণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিল।

১৯৩৮: মাউরিস বাভাউডের কাহিনী

তখন ১৯৩৮ এর শেষের দিক। সুইস ধর্মতত্বের মাউরিস বাভাউড নামের এক ছাত্র একটি পিস্তল কিনেন। এই পিস্তলটি সাথে নিয়েই তিনি সারা জার্মানি হিটলারের পিছু নেন। ব্রাভাউড নিশ্চিত ছিলেন যে, ফিউরার হিসেবে জনপ্রিয় হিটলার আসলে ক্যাথলিক চার্চগুলোর জন্য এক হুমকি এবং সে আসলে শয়তানেরই আরেক রুপ। সুতরাং তিনি হিটলারকে হত্যা করাটা ধর্মীয় দিক থেকে গুরুদায়িত্ব হিসেবেই নিয়েছিলেন।

bild_span12

অবশেষে একদিন সুযোগ পেয়ে গেলেন বাভাউড। ৯ নভেম্বর, ১৯৩৮। হিটলার এবং আরো কয়েকজন নাজি নেতা একটি মার্চে অংশ নিলেন। বাভাউড তাদের চলার পথের পাশেই গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডে জায়গা নিলেন। তিনি হিটলারের জন্য অপেক্ষা করতে লাগলেন। পিস্তলটি তার পকেটেই ছিল। কিন্তু যখন তিনি পিস্তলটি বের করে গুলি চালাতে যাবেন তখনই জনগণ হিটলারকে দেখে দিশেহারা হয়ে গেল। সবাই তাদের হাত উঁচিয়ে তাকে নাজি স্যালুট জানাল। ফলে বাভাউডের চোখের সামনে দর্শকদের হাত দ্বারা এক পর্দা তৈরি হয়ে গেল। বাভাউড হতাশ হয়ে পড়ল এবং তার পরিকল্পনা ব্যর্থ হলো। পরবর্তিতে সে জার্মানি থেকে পালানোর সময় ধরা পড়ে। গেস্টাপো (হিটলারের পুলিশ বাহিনী) তাকে গ্রেফতার করলে তার কাছে ম্যাপ এবং বন্দুক পাওয়া যায়। জিজ্ঞাসাবাদে সে হিটলারকে হত্যাচেষ্টার কথা স্বীকার করে। ১৯৪১ সালে তাকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়।

১৯৩৯: জর্জ এলসারের বিয়ার হল বোমা হামলা

জর্জ এলসার একজন জার্মান কাঠমিস্ত্রী এবং কম্যুনিস্ট ছিলেন। তিনি ঘোরতর নাজি বিরোধী ছিলেন।

01ff9266b08bf6967338b6a9d53bf20a

তিনি মনে করতেন হিটলার জার্মানিকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দেবে আর অর্থনৈতিক দিক থেকেও পৃথিবীকে ধ্বংস করে দেবে। সুতরাং তিনি এর সমাধান খুঁজতে থাকলেন।

১৯৩৯ সাল। বার্গার-ব্রাকেলার, মিউনিখ। এখানেই ৮ নভেম্বর হিটলারের বক্তৃতা দেয়ার কথা। হিটলার এরই মাঝে পোল্যান্ড দখল করে ফেলেছেন। ফলে তার মন মেজাজও বেশ উৎফুল্ল। বক্তৃতাটি তিনি দিবেন বিয়ার হলে। এক সপ্তাহ আগে থেকেই কড়া নজরদারীতে সবকিছু।

এতকিছুর পরেও জর্জ এলসার কিন্তু ঠিকই এই বিয়ার হলে ঢুকে পড়েন। তিনি একই সাথে দক্ষ কাঠমিস্ত্রী এবং ইলেক্ট্রিশিয়ান ছিলেন। কমুন্যিস্ট করায় কয়েক বছর জেলের ভাতও খেয়েছেন।

হিটলারের বক্তৃতা দেয়ার ২ মাস আগে থেকেই এলসার সিকিউরিটিকে ফাঁকি দিয়ে হলের ভেতরে ঢুকে যেত। হিটলার যেখানে বক্তৃতা দেবে সেখানে এক বড় আকারের পিলার ছিল। প্রতি রাতে সে পিলারের গায়ে একটা ছোট্ট খুপরি তৈরি করত। আর তারপর তা ঢেকে দিত।

হিটলারের বক্তৃতা দেয়ার সপ্তাহখানেক আগেই তার খুপরি তৈরির কাজ সম্পূর্ণ হয়। তারপর সেখানে সে একটি টাইম বোমা রাখে যা ঠিক ১৪৪ ঘন্টা বা, ৬ দিন পর ৯ টা ২০ মিনিটে ফাটবে। আর ৬ দিন পর ৯ টা ১০ মিনিটে সেখানে বক্তৃতা দেয়ার কথা ছিল হিটলারের। হিটলারের বক্তৃতার মাঝ পথেই বোমটির ফাটার কথা ছিল। বোম সেট করেই এলসার খুশি মনে সুইজারল্যান্ডে পালিয়ে যাওয়ার জন্য রওনা হলেন।

এরপর এল সেই বক্তৃতা দেয়ার দিন। ৯ টা ১০ মিনিটে বক্তৃতা শুরু করবেন হিটলার। কিন্তু তার বক্তৃতা দেয়ার সময় এমন ছিল যে, তার ট্রেনের কারণে পাবলিক ট্রেন সার্ভিসের বিঘ্ন ঘটবে। তাই জনগণের কথা চিন্তা করে তিনি ১ ঘন্টা বক্তৃতার সময় এগিয়ে আনলেন। অনেকেই বলে এ কাজটি তিনি করেছিলেন দ্রুত বার্লিনে ফিরে যাওয়ার জন্য। কারণ কিছু মাস আগেই ২য় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়েছে।

হিটলার ৮ টায় বক্তৃতা শুরু করলেন, আর শেষ করলেন ৯ টা বেজে ৭ মিনিটে। ৯ টা ১২ মিনিটে তিনি ট্রেনের উদ্দেশ্যে ভবনটি ত্যাগ করেন। ৯ টা ১৭ মিনিটে তার ট্রেনটি ছাড়ে। আর তার ৩ মিনিট পরেই বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটে। বোমা হামলায় ৮ জন নিহত আর ৩৬ জন আহত হয়। পরবর্তিতে এলসার গেস্টাপোদের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন। এভাবেই আবারো অস্বাভাবিকভাবে বেঁচে গেলেন হিটলার।

1939-birmingham-gazette-front-page-reporting-assasination-attempt-e5gfaf

অনেকেই সন্দেহ করে যে, এই বোমা হামলার ঘটনা সাজানো ছিল ব্রিটেনকে দায়ী করার জন্য। কিন্তু সম্ভবত তা সত্য নয়। অধিকাংশ ইতিহাসবিদরা মনে করেন হিটলার এ হামলা সম্বন্ধে কোনো কিছুই জানতেন না।

হিটলারকে হত্যার আরো অনেক অনেক চেষ্টা হয়েছে। প্রায় ৩০ টিরও বেশি। কোনোটিই কখনও সফল হয়নি। শেষ পর্যন্ত হিটলারকে কেউই হত্যা করতে সক্ষম হয়নি, হিটলার নিজে বাদে। ১৯৪৫ সালে তিনি নিজেই আত্মহত্যা করেন।

হিটলারকে হত্যাচেষ্টার কিছু কাহিনী আজ তো শুনলেন। বাকিগুলো না হয় অন্য কোনো দিন শোনা যাবে। সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।

তথ্যসূত্রঃ

১। http://www.history.com/

২। http://www.somewhereinblog.net/

ঢাকা এক্সপ্রেস উড়ালসড়ক ও বাংলাদেশের অন্যান্য মেগাপ্রজেক্ট 

তথ্য-প্রযুক্তি ও যোগাযোগব্যবস্থার পাশাপাশি নানা খাতে বাংলাদেশ প্রভূত উন্নতি সাধন করেছে। বাংলাদেশকে আরো সামনে এগিয়ে নিতে ও এর জীবনমানগত ভিত মজবুত করতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার নানা সময়ে হাতে নিয়েছে নানান পরিকল্পনা। এর কিছু হয়েছে বাস্তবায়িত, কিছু বন্দী হয়ে রয়েছে কাগজ কলমেই, কিছু পেয়েছে প্রশংসার নৈবেদ্য, আবার কিছু জোয়ার এনেছে বিতর্কের। নাগরিক সুবিধা ও জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত মেগাপ্রজেক্ট পরিকল্পনার দ্বিতীয় কিস্তি থাকছে আজকের লেখায়।
কর্ণফুলি আন্ডারওয়াটার টানেল

কর্ণফুলি নদীর তলদেশে নির্মিতব্য এই ডুবো-সুড়ঙ্গ হবে বাংলাদেশের সর্বপ্রথম পানির নিচে তৈরি পথ। কয়েক লেনের পথযুক্ত এই সুড়ঙ্গটি চট্টগ্রাম বন্দরের সাথে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলাকে সংযুক্ত করবে। পাশাপাশি দেশের অন্যান্য প্রান্তের সাথেও সংযোগ স্থাপন করবে। প্রায় ৮৪.৪৭ বিলিয়ন টাকা ব্যয়ের এই প্রজেক্টে চায়না এক্সিম ব্যাংক দেবে ৪৭.৯৯ বিলিয়ন টাকা, বাকি টাকা আসবে রাষ্ট্রীয় তহবিল হতে। এই সুড়ঙ্গপথ কর্ণফুলির ওপর নির্মিত দুটো সেতুর যানজটের চাপ কমিয়ে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের মধ্যবর্তী যোগাযোগব্যবস্থাকে আরো সুগম করবে। কর্ণফুলি নদীর ওপর আরেকটি সেতু তৈরি করা হলে নদীর নাব্যতা হারিয়ে যেতে পারে বিধায় এই ডুবো-সুড়ঙ্গ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। চীনের রাষ্ট্রপতি ঝি জিনপিং এর এটি উদ্বোধন করার কথা। ৩.৪ কিলোমিটার লম্বা এই সুড়ঙ্গপথের কাজ ২০২০ সাল নাগাদ শেষ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নির্মিতব্য কর্ণফুলি আন্ডারওয়াটার টানেল

এলএনজি টার্মিনাল

তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা লিক্যুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) টার্মিনাল একটি ভাসমান স্থল যা তরল গ্যাস সংরক্ষণ ও পুনঃবায়বীয়করণের কাজে ব্যবহৃত হতে পারে। এই এলএনজি টার্মিনালের মাধ্যমে বাংলাদেশ কাতার থেকে দৈনিক প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস আমদানী করতে পারবে। এই পরিমাণ তরলীকৃত গ্যাসকে পুনঃবায়বীয়করণের মাধ্যমে তা জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হবে।

মহেশখালি থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ৯০ কিলোমিটার লম্বা পাইপলাইন নির্মাণ করা হচ্ছে, যাতে জাতীয় গ্রিডের সাথে এই টার্মিনালের সংযোগ স্থাপন করা যায়। এই এলএনজি আমদানী করতে বার্ষিক খরচ হবে প্রায় ১.৫৬ বিলিয়ন ডলার। দৈনিক ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পুনঃতরলীকরণে খরচ পড়বে ২ লাখ ৪৮ হাজার ডলার। এলএনজি আমাদের জন্য অনেক খরুচে প্রমাণিত হলেও এর মাধ্যমে প্রধান জ্বালানী উৎসকে অন্যমুখী করা যাবে। অর্থাৎ ভবিষ্যতে গ্যাস বা জ্বালানী সংকটে যেন গ্যাসভিত্তিক কারখানা ও শিল্পগুলো বন্ধ না হয়ে যায় তা নিশ্চিত করা যাবে। পাশাপাশি ২০২১ সালের মধ্যে ২৪,০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছতে এই এলএনজি আমদানী বেশ সাহায্য করবে।

এই ভাসমান টার্মিনাল নির্মাণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান এক্সেলারেট এনার্জি বাংলাদেশকে, যারা কিনা ১ লাখ ৫৯ হাজার ১৮৬ ডলার নেবে এলএনজি টার্মিনালের ভাড়া হিসেবে এবং ৪৫,৮১৪ ডলার নেবে এটিকে চালানোর জন্যে। অন্যান্য খাতে ব্যয় হবে আরো ৩২,০০০ ডলার। ফলস্বরূপ প্রতি হাজার ঘনফুট গ্যাসের দাম পড়বে অন্তত ৩.২ ডলার করে। এই চুক্তির মেয়াদ ১৫ বছর। এছাড়াও আরো একটি ভাসমান ও চারটি স্থলজ এলএনজি টার্মিনালের কাজ চলছে।

এলএনজি টার্মিনাল


মাতারবাড়ি কয়লা তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র

মহেশখালীর নিকট মাতারবাড়িতে নির্মিত হতে যাওয়া মাতারবাড়ি কয়লাচালিত তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রটি প্রায় ১,৫০০ একর জায়গার ওপর তৈরি হচ্ছে। জায়গাটিকে উপযুক্ত করে কাজ করা খুবই সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন ক্ষমতা ১,২০০ মেগাওয়াট হবে এবং এটি পৃথিবীর সর্বাপেক্ষা ব্যয়বহুল বিদুৎকেন্দ্রের মধ্যে একটি হবে। কেননা ৪.৬ বিলিয়ন ডলার খরচে নির্মিতব্য এই স্থাপনাটির থাকবে কয়লা আমদানীর জন্য নিজস্ব গভীর সমুদ্রবন্দর। পাওয়ার ইভাক্যুয়েশন, সাবস্টেশন এবং প্ল্যান্টের পাশাপাশি বন্দর নির্মাণের কাজের জন্য নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর সীমানাপ্রাচীরের শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে, ২০২২ সাল নাগাদ তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রটির কাজ শেষ হবে বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

মাতারবাড়ি কয়লা তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র

ঢাকা এক্সপ্রেস উড়ালসড়ক

এটি বাংলাদেশের প্রথম এক্সপ্রেস উড়ালসড়ক। ৪৭.৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পথ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মহাখালী, তেজগাঁও ও কমলাপুর হয়ে কুতুবখালীকে সংযুক্ত করবে। নগরীর যানজট কমাতে সহায়ক এই একপ্রেস উড়ালসড়ক পথের বাজেট ধরা হয়েছে ১২২ বিলিয়ন টাকা।

ঢাকা এক্সপ্রেস উড়ালসড়ক


গভীর সমুদ্রবন্দর

বাংলাদেশের বর্তমান তিনটি সমুদ্রবন্দরের কোনোটিই গভীর সমুদ্রবন্দর নয়। তাই বড় জাহাজ থেকে ছোট ছোট জাহাজ বা নৌযানে করে এনে পণ্য খালাস করা হয় বন্দরে- যা সময়সাপেক্ষ ও জটিল ব্যাপার। গভীর সমুদ্রবন্দর হলে সরাসরি জাহাজ থেকেই পণ্য খালাস করা সম্ভব হবে এবং বেঁচে যাবে দৈনিক প্রায় ১৫,০০০ ডলারের অতিরিক্ত পরিবহন খরচ। এই লক্ষ্যে কক্সবাজারের সোনাদিয়ায় একটি গভীর সমুদ্রবন্দর তৈরির কথা থাকলেও আন্তর্জাতিক রাজনীতির মারপ্যাঁচের দরুণ বাংলাদেশকে এটি বাতিল করার কৌশলী সিদ্ধান্ত নিতে হয়। এছাড়া অর্থসংকটও এর জন্য দায়ী।

বর্তমানে বাংলাদেশ পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণে মনোনিবেশ করেছে। এটি বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পশ্চিম উপকূলে পটুয়াখালী এলাকায় তৈরি হবে। ব্রিটিশ কোম্পানি এইচআর ওয়েলিংফোর্ড এই বন্দরের উপযুক্ততা যাচাই করে দেখেছে এবং নির্মাণকাজে এরা বাংলাদেশকে নির্দেশনা দেবে। চীন, ইংল্যান্ড, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক এবং ভারত আর্থিকভাবে সম্পৃক্ততার প্রস্তাব দিয়েছে। ১৫ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি অর্থলগ্নি করতে তারা আগ্রহী।

১৯টি আলাদা টেন্ডারের মাধ্যমে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হবে। নির্মাণকাজ সম্পন্ন হবে তিনটি মেয়াদে। স্বল্পমেয়াদী পরিকল্পনায় রাখা হয়েছে- পাথরবাহী, সারবাহী ও অন্যান্য বড় জাহাজগুলোর বহিঃনোঙ্গর করার ব্যবস্থা করা। মধ্যম কিস্তিতে ২০১৮ সালের মধ্যে বড় বহুমুখী টার্মিনালের অবকাঠামোর পাশাপাশি ১০ মিটার গভীর চ্যানেল তৈরি করা হবে। দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনানুসারে ২০২৩ সালের মধ্যে ১৬ মিটার চ্যানেলসহ গভীর সমুদ্রবন্দরটি সম্পূর্ণ সচল হবে।

পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর

পদ্মা বাঁধ

বাংলাদেশ সরকার পদ্মা বাঁধ তৈরির কথা ভাবছে। বন্যার সময় ভারত ফারাক্কা বাঁধ খুলে দিলে বন্যায় পানির নিচে তলিয়ে যায় বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের অনেক এলাকা। এ সমস্যা থেকে বাঁচতে বাংলাদেশ পদ্মা বাঁধ তৈরির কথা ভাবছে। এ বাঁধ ঐ মৌসুমে বন্যা আটকাতে শুধু পানিই ধরে রাখবে না, বরং এর থেকে পাওয়া যাবে বহুমুখী উপকারিতা।

যেমন- এই বাঁধের মাধ্যমে সঞ্চিত পানি, যা কিনা প্রায় ১৬৫ কিলোমিটার জুড়ে রাজবাড়ীর পাংশা থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাংখা পর্যন্ত প্রায় ২,৯০০ মিলিয়ন ঘনমিটার। খরা মৌসুমে তা ব্যবহার করে সেচ দেয়া থেকে শুরু করে গড়াই, মধুমতি ও পদ্মা নদীতে পানির যোগান দিয়ে এগুলোকে পুনঃসজীব করে তোলা যাবে। বৃহত্তর কুষ্টিয়া, ফরিদপুর যশোর, খুলনা, বরিশাল, পাবনা এবং রাজশাহীর প্রায় ১৯ লাখ হেক্টর কৃষিজমি এ থেকে উপকৃত হবে। উপকূলীয় অঞ্চলের মাটিতে লবনাক্ততা কমাতেও ভূমিকা রাখবে এটি। এর পাশাপাশি এটি মৎস্য উৎপাদন বাড়িয়ে বৎসরে প্রায় আড়াই লাখ মেট্রিক টনে নিয়ে যাবে। পরিকল্পনামাফিক এর পাশে একটি পানি বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরি করা হলে তা বাৎসরিক ১৫০ মেগাওয়াট করে জাতীয় গ্রিডে যোগান দেবে।

পদ্মা বাঁধ

রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র

বহুল বিতর্কিত বাংলাদেশের একটি প্রজেক্ট হলো রামপাল কয়লাচালিত তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র। ১,৩২০ মেগাওয়াটের এই শক্তি উৎপাদন কেন্দ্র নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি।

সুন্দরবন থেকে ১৪ কিলোমিটার উত্তরে পশুর নদীর তীরে ১,৮৩৪ একর জমির ওপর এটি তৈরি হচ্ছে। এটি তৈরিতে খরচ ধরা হয়েছে ১.৫ বিলিয়ন ডলার। এটি চালাতে বছরে ৪.৭২ বিলিয়ন টন কয়লা লাগবে যা প্রতিটি ৮০,০০০ টন ক্ষমতা সম্পন্ন মোট ৫৯টি জাহাজে করে নিয়ে আসা হবে। এই সব জাহাজ থেকে তেল, সালফার, ছাই কিংবা অন্যান্য জৈব-রাসায়নিক পদার্থ পশুর নদীতে প্রতিনিয়ত মিশতে থাকবে। এছাড়াও এসব জাহাজ ডুবে গেলে সেটাও ক্ষতি ডেকে আনবে। কেননা এতে বহনকারী সকল পদার্থ পানিতে মিশে যাবে। এতে জীব-বৈচিত্র্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

সুন্দরবন থেকে এটি মাত্র ১৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত হওয়ায় এর থেকে নির্গত তাপ ও অন্যান্য বস্তু পরিবেশের ক্ষতি ডেকে আনতে ভূমিকা রাখবে। এই শক্তিকেন্দ্রের প্রতিদিন দুই লক্ষ উনিশ হাজার ছয়শ ঘনমিটার পানি লাগবে যা পশুর নদী থেকে টেনে নেয়া হবে এবং ব্যবহৃত পানি প্রক্রিয়াজাত করে নদীতে ছাড়া হলে তা নানানভাবে পরিবেশ, জলজ জীবন ও জীববৈচিত্র্য এবং ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চলকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। এখান থেকে নির্গত হওয়া বিষাক্ত গ্যাস, কার্বন মনোক্সাইড, সালফার ও নাইট্রোজেনের অক্সাইডসমূহ পরিবেশকে বিপর্যস্ত করবে। ২০১৬ সালে ইউনেস্কোর এক রিপোর্টে এই প্রজেক্টের ঝুঁকির কথা বলে বাংলাদেশকে এটি বাতিল করার অনুরোধ করা হয়। ভারতেও একসময় মধ্য প্রদেশে এর অনুরূপ একটি প্রজেক্ট বাতিল করে দিয়েছিল।



সরকারের দাবি অনুযায়ী, এই বিদ্যুৎকেন্দ্রে গ্রীন হাউজ গ্যাসের নির্গমন সর্বনিম্ন পর্যায়ে রাখা হবে এবং দূষণ রোধে উন্নত মানের কয়লা, ২৭৫ ফিট লম্বা চিমনিসহ অন্যান্য যন্ত্রাংশ ও নির্মাণ সামগ্রী আমদানী করা হচ্ছে। পক্ষ-বিপক্ষের নানা মতামত ও আলোচনার পাশাপাশি বিতর্কের জন্ম দিয়েই এগিয়ে চলেছে রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ। এ প্রজেক্টটি শেষপর্যন্ত কোন পরিণতিতে গিয়ে ঠেকবে তা একমাত্র সময়ই বলে দিতে পারে।

রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র

৪ লেনের রাস্তা

ঢাকা-চট্টগ্রামের পর ঢাকা-সিলেট চার লেনের রাস্তার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এতে ১,৬০৩.৩৫ মিলিয়ন ডলার বৈদেশিক সাহায্য প্রয়োজন।

এছাড়াও শান্তিনগর-মাওয়া উড়ালসড়ক ও ঢাকা-আশুলিয়া উড়ালসড়ক, ঢাকা বাইপাস তৈরির পরিকল্পনাও রয়েছে। এর পাশাপাশি মেরিন ড্রাইভ এক্সপ্রেসওয়ে তৈরি, সীতাকুন্ড-কক্সবাজার এলাকায় প্রহরা, পদ্মাসেতু রেল লিঙ্ক ১ ও ২, পাওয়ার সিস্টেম নেটওয়ার্ক শক্তিশালীকরণসহ আরো নানা প্রজেক্টের জন্য বাংলাদেশ সরকার চীনের সাথে চুক্তি করেছে।

এভাবেই দেশজ উন্নয়ন ও উৎকর্ষতা সাধনকল্পে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে অসংখ্য পরিকল্পনা। এগুলোর সম্ভাবনা ও উপকারিতার পাশাপাশি কিছু ক্ষেত্রে বিতর্ক, আশঙ্কা ও সমালোচনার সলতেও যে উস্কে উঠেছে তা বলবার অপেক্ষা রাখে না। প্রাকৃতিক সম্পদের যথার্থ মূল্যায়ন ও ব্যবহার এবং অর্থ-সম্পদের সঠিক প্রয়োগই রুখে দিতে পারে যেকোনো অযাচিত ফলাফল- সার্থক করতে পারে মেগা প্রজেক্টসমূহের মহৎ উদ্দেশ্যকে। বাংলাদেশের নেয়া এই মেগা প্রজেক্ট পরিকল্পনাসমূহ আমূল বদলে দিতে পারে দেশের ভবিষ্যত।

এ সিরিজের পূর্ববর্তী পর্ব

বাংলাদেশের মেগা প্রজেক্টসমূহ
তথ্যসূত্র

১) goo.gl/eiW1iX

২) goo.gl/IyB5Sz

৩) goo.gl/m2mM21

৪) goo.gl/cx8ZFB

৫) goo.gl/RWBuu7

৬) goo.gl/hWWEoy

৭) goo.gl/xF4CiG